ভগবান শ্রী কৃষ্ণের অমৃত বাণী – Krishna Quotes

Krishna Quotes in Bengali – শ্রী কৃষ্ণের বাণী

সখী, নদীর জলে স্নান করে সকলের পাপ মোচন হয়, কিন্তু নদী কখনো পাপ যুক্ত হয় না এতে। অধর্ম ও পাপ করেছে কুরুরা তুমি কেন নিজেকে পীড়ায় আচ্ছন্ন করে রেখেছ সখী? নদীতে ময়লা পড়লে সেই ময়লা নদী সমুদ্রের সাথে মিশিয়ে দিয়ে নিজে নির্মল থাকে। সকলকে ক্ষমা করে দাও এবং নিজের সকল দুঃখকে পরমাত্মার সাথে একিভুত করে নিজেকে গ্লানি মুক্ত কর। প্রতিশোধ কখনো ধর্ম হতে পারে না, প্রতিশোধ হলো অধার্মিকের অধর্ম। তুমি নিজের কথা ভাবছ সখী ? এক বার ভেবে দেখ চক্রবর্ত্তী সম্রাটের রানী হয়ে তোমার যদি এই পরিনতি হয় তবে সাধারণ স্ত্রী লোকের কি পরিনতি হবে ওদের হাতে? শুধু নিজের কথা ভেবোনা সখী, সংসারের কথা ভাব। নিজের পীড়ায় আবদ্ধ হলে মানুষ শক্তি হীন হয়ে পরে, আর বিশ্বসংসারের সকলের পীড়ার কথা মনে করলে মানুষ শক্তিশালী হয়ে উঠে। নিজের পীড়া দ্বারা বিশ্বসংসারের পীড়াকে অনুভব কর সখী। দুর্যধনকে ক্ষমা করে দাও সখী, তোমার ক্ষমাই হবে ওর বিনাসের প্রথম পদক্ষেপ।

শ্রী কৃষ্ণের বাণী – ভগবান শ্রীকৃষ্ণের বাণী

রাজসভায় উপস্থিত সকল পুরুষদের দ্বারা চরম অপমানিত ও লাঞ্চিত হবার পর দ্রোপদী যখন ইদ্রপ্রস্তে রুদ্ধ দ্বারে নিজকে বন্ধী করেছিলেন তখন বাসুদেব শ্রী কৃষ্ণ দ্রোপদীকে যে সকল বানী দিয়ে উদ্দিপ্ত করেছিলেন সেই সব উক্তি ধ্বংস হয়ে যাওয়া মনের মানুষকে জাগিয়ে তুলতে শ্রেষ্ঠ বানী বলে আমার মনে হয়েছে।

1.জ্ঞানীর নিকট সত্য ই পরম ধর্ম।
2.দুর্বলই কেবল ভাগ্যের দোষারোপ করে আর
বীর ভাগ্যকে অর্জন করে।
3.গোদান করে দড়ির উপর মায়া রেখে কি
লাভ?যখন মোহ ত্যাগ করবে,তখন
নিঃস্বার্থভাবে ত্যাগ করবে।
4.শোকের চেয়ে বড় নাশকর্তা আর কিছু
নেই, শোক মানুষের সব শক্তিকেই নষ্ট করে
দেয়,তাই শোক করোনা।
5.ব্যাবহার ও চরিত্রেই বংশের পরিচয় হয়।
6.মিথ্যাবাদী ব্যাক্তি সর্পের চেয়েও
ভয়ঙ্কর।

শ্রী কৃষ্ণের ছবি

7.সত্যই এ জগতের নিয়ন্ত্রক,সত্যেই ধর্ম
প্রোথিত হয়ে আছে।
8.মাতৃঋণ কোন সন্তানই কখনো শোধ করতে
পারেনা।
9.চন্দ্র তাঁর সৌন্দর্য হারাতে পারে,হিমবন
বরফশুন্য হয়ে পড়তে পারে,সমুদ্র বিরান হয়ে
যেতে পারে কিন্তু রাম কখনো তার
প্রতিজ্ঞা হতে বিচ্যুত হয়না।
10.শেকড়হীন বিশাল বৃক্ষ ও যেমন সত্তরই
নির্জীব হয়ে পড়ে ঠিক তেমনি নিরীহের
ক্ষতিকারী শত শক্তিশালী হলেও সমূলে
পতিত হয়।
11.উৎসাহ এর চেয়ে বড় বল আর কিছুই
নেই,উৎসাহী ব্যাক্তি জগত ও জয় করতে
পারে।
12.দুঃখ বা দুর্দশায় একজন প্রকৃত বন্ধুর মত
পরম সঙ্গী আর কেউ নেই অনুকম্পা,দয়া,
ক্ষমাও মানবতার মত বড় গুন আর নেই।
13.হৃদয়বানের কোন ক্রোধ নেই।
14.অতি গর্জনকারী মেঘ খুব কদাচিৎই
বর্ষে, প্রকৃত বীর অকারনে বাক্যব্যায়
করেনা।
15.দেশে দেশে বন্ধু,আত্মীয়স্বজন বা স্ত্রী
মেলে কিন্তু পৃথিবীতে এমন কোন দেশ নেই
যেখানে ভ্রাতা লক্ষন এর মত সহোদর মেলা
সম্ভব।
16.তপস্যাই পরম শ্রেয়,বাকী সকলই মায়া।
17.যদিও লঙ্কা ধন সম্পদে পরিপূর্ণ তথাপি
হে লক্ষন, এখানে আমার শান্তি লাভ
হচ্ছেনা, সব সময় মনে রাখবে, জননী ও
জন্মভুমি স্বর্গ অপেক্ষাও শ্রেষ্ঠ।

শেষ কথা 

ভগবান শ্রী কৃষ্ণের লীলা বলতে তাঁর পদক্ষেপকেই বুঝি। তাঁর লীলা বা পদক্ষেপ গুলি এতোটাই শুদ্ধ ও পবিত্র ও যুক্তি যুক্ত যে তাঁকে ভাগবান না ভেবে থাকা সম্ভব নয়। নররূপী নারায়ণ তিনি, তিনি ভক্তের বন্ধু ও সখা কৃষ্ণ।অধার্মিক, আধা ধার্মিক, অতি আধুনিক, অবিশ্বাসী, বস্তুবাদী, মানবতাবাদীদের বলছি এমন উদার বানীর একটা উদাহরণ আপনাদের অবিশ্বাসের ভাণ্ডার থেকে বের করে দিন ! যদি না পারেন তবে ধনরুপী ধন ভাণ্ডার সনাতনকে চর্চা করুন এবং শ্রদ্ধা করুন। না জেনে বা চর্চা না করে আমি মানিনা এই ধারণাকে শুধু মাত্র অথর্বের প্রলাপ বলা ছাড়া আর কিছুই বলা যায় না। ঈশ্বর সকলের মঙ্গল করুন গর্বের সাথে বলুন আমরা বৈদিক, আমরা সনাতন।

Comments are closed.