কিভাবে ফেসবুকে লাইক বাড়াবেন – How To Increase Facebook Likes In Bengali

0

বন্ধুরা আজ আমি আপনাদের এমন একটা জিনিস জানাবো যেটা আপনি মেনে চললে আপনারও ফেসবুক এ ঝড়ের মতন লাইক আর কমেন্ট পড়তে থাকবে। জেনে নেবো সেই অসাধারণ কিছু টিপস। বন্ধুরা আপনারা ফেসবুক ব্যবহার করছেন অনেক দিন হয়ে গেলো। কিন্তু বাকিদের মতন আপনার প্রোফাইল এ বেশি লাইক বা কমেন্ট পরে না।  তাছাড়া আপনার বন্ধু ও বান্ধবিরাও ওঁর সব ছবিতে ফেসবুক লাইক দিয়েছে এবং কমেন্টস বক্সে সুন্দর সুন্দর কমেন্টস করে রেখেছে। আপনার তাতে একটু চাপা কষ্ট বা রাগ হয়। যদি আপনার পরিস্থিতি ঠিক এমন হয়, তাহলে এই আর্টিকেলটি আপনার জন্য। আর্টিকেলটি শেষ পর্যন্ত পড়তে থাকুন, আপনিও এই পরিস্থিতি থেকে বের হয়ে কিভাবে ফেসবুকে আরো লাইক  আরো কমেন্টস এবং আরো শেয়ার পাবেন সেটি জানতে পারবেন। তো চলুন শুরু করা যাক জেনে নেই কিভাবে ফেসবুক লাইক বাড়াতে হয়। আমরা দেখে নেবো যে – ফেসবুকে অটো লাইক পাওয়ার উপায় ইত্যাদি ইত্যাদি। 

নিয়মিত পোস্ট করুনঃ-

ফেসবুকে লাইক পেতে হলে নিয়মিত ফেইসবুক পোস্ট করতে হবে কিন্তু ফেইসবুককে আবার আপনার পারসোনাল ডায়েরি মনে করবেন না। সারা দিনে যদি একটি পোস্ট করেও করেন, তাতে কিছু দিন বা মাস পর আপনার টাইমলাইন কন্টেন্ট এ ভরে যাবে। আর পোস্ট করার সময় ইউনিক, আকর্ষনীয়, এবং আপনার বন্ধুরা পড়ে যাতে হাসিতে ফেটে পড়ে বা কান্নায় ভেঙ্গে পড়ে এমন  কিছু ফেসবুক পোস্ট করার চেস্টা করবেন। যখন বেশি সংখ্যক ফেসবুক ফ্রেন্ড অনলাইনে থাকবে, তখন বেশি পোস্ট করুন। তাহলে তারা সাথে সাথে আপনার করা ফেইসবুকে করা পোস্টটি দেখতে পাবে, ফেসবুক লাইক বা ফেসবুক কমেন্টসসও করতে পারবে।

পোস্টে ট্যাগ করুনঃ-

ফেসবুক ট্যাগ করা মানে অন্যকেও জানিয়ে দেয়া। কাউকে কোন পোস্টে ট্যাগ করলে, ফেসবুক ট্যাগ করা সবাইকে এই পোস্টটি সমপর্কে অবহিত করবে, এর মাধ্যমে আপনার পোস্টে ফেসবুক লাইক বাড়ার পসিবিলিটিও বেড়ে যাবে, কারন ফেচবুক ট্যাগ করার কারনে পসিবিলিটি থাকে যাদের ফেইসবুক ট্যাগ করলেন তাদের প্রোফাইলেও পোস্টটি সো করবে। ফলে এই ফেসবুক পোস্টটি তাদের ফ্রেন্ডরাও দেখতে পারবে।  তবে ফেইসবুক ট্যাগ করার সময় সংযমি হয়ে করুন, এভাবে কাউকে বার বার বিরক্ত করা ঠিক হবে না।

ফেইসবুক ফ্রেন্ডের সংখ্যা বাড়ানঃ-

যদি আপনার মাত্র কয়েক জন ফেসবুক ফ্রেন্ড থাকে তাহলে হয়তো তারা স্বেচ্ছায় আপনার প্রোফাইল ভিজিট করা ছাড়া আপনার পোস্ট তেমন একটা দেখবেও না। আপনার ফেসবুক ফ্রেন্ড সংখ্যা যত বেশি থাকবে, তত বেশি ফেইসবুক ফ্রেন্ডরা আপনার লেখা পোস্টগুলো দেখবে, যত বেশি মানুষ আপনার ফেসবুক পোস্ট দেখবে তত পসিবিলিটি বাড়ে যে পোস্টগুলো ভাল লাগলে তারা লাইক, কমেন্টস অথবা শেয়ার করবে। ফেইসবুক ফ্রেন্ড এড করার সময় শুধু মাত্র আপনি যাদের চিনেন কেবল ফেচবুক তাদেরই এড করুন, কেননা তারা আপনার পোস্ট আগ্রহ নিয়ে দেখবে, এমনকি লাইকও করবে।

বন্ধুদের পোস্টে লাইক করুনঃ-

কথায় আছে অন্যদের কাছ থেকে আপনি যা আশা করেন আগে তাদেরকে তা দিন। মনে রাখবেন, আপানার ফেসবুক বন্ধুদের পোস্টে লাইক দেয়া একধরনের বিনিয়োগ, যখন আপনি আপনার বন্ধুর কোন ফেচবুক পোস্টে বা ছবিতে ফেসবুক লাইক দিবেন তখন তারা কৃতজ্ঞতা থেকে আপনার পোস্টেও ফেসবুক লাইক দিবে, এটা একধরনের গিভ এন্ড টেক লাইকিং, আর এই পদ্ধতিটি খুবই কার্যকরি এবং প্রমানিত। ফ্রেন্ডের ফেচবুক কন্টেন্ট লাইক করলে ফেসবুক বুঝবে যে আপনি আপানার ওই ফেসবুক ফ্রেন্ডের কাছ থেকে আরও বেশি কন্টেন্ট চান, ফলে ফেসবুক আপনার কন্টেন্টও তাকে দেখাবে আর আপনাকেও তার কন্টেন্ট দেখাবে। এতে দুজনেরই ফেসবুক লাইক পাওয়ার পসিবিলিটি বাড়বে।

কমেন্ট করুনঃ-

আপনার ফেসবুক কন্টেন্টগুলো আপনার কোন বন্ধু বেশি দেখবে, যদিও এ বিষয়ে ফেসবুকের সঠিক এলগোরিদম কি সেটা বলা মুশকিল, তবে যার সাথে আপনার বেশি ইন্টার‍্যাক্টশন থাকবে বা কোরিলেশন থাকবে, তার ফেইসবুক পোস্টটি আপনি আর আপনার  ফেসবুক পোস্টটি তার দেখার সম্ভাবনাই বেশি। কারও ফেচবুক পোস্টে কমেন্ট করলে ফেসবুক সেটা সব বন্ধুদের নিউজ ফিডে শেয়ার দেয় যে আপনি আপনার কোন ফেইসবুক ফ্রেন্ডের পোঁস্টে কমেন্টস করেছেন, ফলে সবাই দেখতে পায় আর এতে আপনার ফেচবুক প্রোফাইল ভিজিবিলিটি বাড়তে থাকে ফলে ফেসবুক লাইক কমেন্টস এবং শেয়ারিং এর পসিবিলিটিও বাড়ে।

ফটো ও ভিডিও আপ করুনঃ-

ফেসবুক লাইক পাওয়ার জন্য শুধু টেক্সট আকারে পোস্ট না করে পাশাপাশি ভালো ক্যামেরা বা ডিএসলার দিয়ে তোলা স্টাইলিশ কিছু ফটো, ভিডিও অথবা যদি অন্য কোন মজাদার কিছু ফেচবুকে শেয়ার করার মত থাকে, যেটা ছবি কিংবা ভিডিও হতে পারে, সেটাও শেয়ার করতে পারেন। খেয়াল রাখবেন, এক সাথে অনেকগুলো ছবি ফেসবুকে আপ করার অপশন ফেইসবুক দিয়েছে, কিন্তু একসাথে অনেক পিক ফেসবুকে না দিয়ে একটা করে দিলে সবাই সেটা দেখবে আর একসাথে দিলে ভিউ না করার চান্স থাকে।

রিলেশন বিল্ডআপ করুনঃ-

আপনার ফেসবুকে যত ফ্রেন্ড আছে ধীরে ধীরে তাদের সাথে সুন্দর রিলেশন বিল্ডআপের চেস্টা করুন। তাদের মাঝে মাঝে  ফেসবুকে ইনবক্স করুন, খোঁজ খবর নিন এবং সুযোগ বুঝে তাদের কাজের অথবা তাদের ফেসবুক ফটোর আন্তরিক প্রশংসা করুন।  তাদের ফেসবুক পোস্টে লাইক এবং কমেন্টসের পরেও, ইনবক্সে চ্যাটিং করার সময় ডিপ্লোম্যাটিক ওয়েতে কথাগুলো বলুন। তবে এই রিলেশন বিল্ডআপের কাজটি করতে একটু সময় নিন, খুব তড়িঘড়ি করে ফেইসবুকে রিলেশন বিল্ডআপ হয় না।

 

Leave A Reply

Your email address will not be published.