দাঁতের ব্যাথা ও দাঁতের পোকা দূর করার উপায়

নমস্কার বন্ধুরা আমি শান্তনু আপনাদের সবাইকে আমার এই chalokolkata.com এ স্বাগতম। আশা করি সবাই আপনারা ভালোই আছেন আর  সুস্থ আছেন। বন্ধুরা আমাদের জীবনে তো অনেক  সমস্যা আছে আর তার মধ্যে একটা অসহ্য করা সমস্যা যেতে এখন বহু মানুষ আছেন কষ্ট পাচ্ছেন বা পান। সত্যি কথা বলতে আমার বাবা (শ্রী বাসুদেব পাল ) এই নিয়ে অনেকটাই কষ্ট পেয়েছেন। রাত বিরেতে ব্যাথা করতো, চিৎকার করতো, মাঝ রাত ঘুম থেকে উঠে বিছানায় বসে থাকতেন। সে যে কি কষ্ট চোখে দেখা যায় না।

কথাতেই আছে ‘দাঁত থাকতে দাঁতের মর্ম কেউ বোঝেনা’. একথা কতটা সত্যি সেটা তারাই বোঝেন যারা দাঁত নিয়ে কষ্ট পাচ্ছেন বা পেয়েছেন। প্রতিদিন দাঁতের যত্ন নেওয়া অবশ্যই দরকার। যেমন, সকালে দাঁত ব্রাশ করা আর রাতে শুতে যাওয়ার আগে দাঁত ব্রাশ করা খুবই দরকারি। কিন্তু অনেকেই এই নিয়ম মেনে চলেন না। তাই কষ্ট পান দাঁতের ব্যাথায়। আমি নিজেও আগে ব্রাশ করতাম না রাতে। ভাবতাম সকালে তো করি রাত এ করে কি আর হবে। না বন্ধুরা রাতেও ব্রাশ করা দরকার। ১ মাস করুন আপনি নিজেই বুঝতে পারবেন।

দাঁতে ব্যাথা হবার একটি খারাপ সময়ও আছে। সেটি হল রাতে ঘুমনোর সময়।  সারা রাত সেই অসহ্য ব্যাথা সহ্য করা ছাড়া কিছু করার থাকেনা। তারপর যখন শীতকাল আসবে তখন সবরকম ব্যাথার জন্য খুবই সাংঘাতিক। teeth painআর সেটা যদি হয় দাঁতের ব্যাথা তাহলে তো কোন কথাই নেই, মানে আপনি শেষ। না না শেষ মানে মারা যাবেন না। মানে এতটাই ব্যাথা করে যেটা সহ্য করা সম্ভব নয়।

তাহলে কি উপায়ে ঠিক করবেন দাঁতের ব্যাথা ?

উপায় আপনার ঘরেই পাবেন। এমন কিছু জিনিস যা আপনার ঘরেই আছে, তা আপনাকে দাঁতের ব্যাথা থেকে মুক্তি দেওয়ার জন্য যথেষ্ট। আসুন তাহলে জেনে নেওয়া যাক সেগুলি কি –

আদা

দাঁতে ব্যাথা থেকে নিমিষে আরাম দেয় আদা। এক টুকরো আদা নিয়ে ব্যাথা যুক্ত দাঁত দিয়ে চিবতে থাকুন। যে দাঁতে ব্যাথা তার ওপরে আর আশে পাশে আদার রস দিন। কিছুক্ষন পর অবশ্যই ব্যাথা থেকে আরাম পাবেন।

বেকিং সোডা

একটু তুলো জলে ভিজিয়ে রেখে তার ওপর খানিকটা বেকিং সোডা নিয়ে ব্যাথা দাঁতের ওপর দিয়ে রাখুন। তারপর এক গ্লাস গরম জলে বেকিং সোডা নিয়ে কুলকুচি করুন, ব্যাথা থেকে অবশ্যই আরাম পাবেন ।

পেঁয়াজ

এক টুকরো পেঁয়াজ কেটে দাঁতের ফাঁকে দিয়ে রাখুন, নিশ্চয়ই উপকারে আসবে।

লঙ্কা

অবাক হচ্ছেন ? অবাক হওয়ার কিছু নেই। শুকনো লঙ্কা বা কাঁচা লঙ্কা পেস্ট তৈরি করে ব্যাথা দাঁতের উপর দিয়ে রাখুন। লঙ্কায় থাকা ক্যালসিয়াম ব্যাথা কমিয়ে দেবে।

লবঙ্গ

এই জিনিসটি সব বাড়িতেই থাকে। যখন দাঁতে ব্যাথা হবে তখন যে দাঁতটি ব্যাথা তার ওপরে একটি লবঙ্গ উলটো দিক দিয়ে চেপে ধরে থাকুন। অথবা দাঁতে লবঙ্গ তেল ব্যাবহার করতে পারেন। এর ফলে ব্যাথা থেকে সাময়িক মুক্তি পাবেন। তবে সাবধান, দু ফোঁটার বেশি তেল ব্যবহার করবেন না।

লবণ জল

এটি দাঁতে ব্যাথা কমানোর একটি সাধারণ উপায়। লবণ এমন একটি উপাদান যা প্রত্যেক ঘরেই থাকে। দাঁতে ব্যাথা হলে উষ্ণ গরম জলে একটু লবণ মিশিয়ে বারবার কুলকুচি করুন। এতে দাঁতের ব্যাথা কমবে আর মুখে থাকা জীবাণু নাশ হবে। এর সঙ্গে মাড়িতে রক্ত চলাচল হবে ফলে মাড়ির ব্যাথাও কমে আসবে।

রসুন

এক কোয়া রসুন থেঁতো করে বা তাতে একটু লবণ মিশিয়ে দাঁতে লাগিয়ে রাখুন, উপকার পাবেন।

দাঁতে পোকা হলে, তার থেকে পুরোপুরি মুক্তি পাওয়ার উপায় কী?

পুরোপুরি মুক্তি পেতে গেলে একজন ভাল দাঁতের চিকিৎসকের পরামর্শ নিন। একে তাকে উপায়ের সন্ধান জিজ্ঞেস করতে থাকলে হবে না পুরোপুরি মুক্তি। দাঁতে পোকা বলতে বাস্তবে কিছু নেই। কিন্তু দাঁতে পোকা বলতে মানুষ যা ভাবে তা হলো ব্যাকটেরিয়া। চিনিযুক্ত খাবারের সাথে ব্যাকটেরিয়া রিএকশন করে একধরনের এসিড তৈরী করে যা দাঁতের টিস্যুতে ক্ষয় সৃষ্টি করে যা ডেন্টাল ক্যারিজ নামে পরিচিত।

ডেন্টাল ক্যারিজ থেকে মুক্তির উপায়:-

1. চিনি জাতীয় খাবার কম খাবেন বা পরিহার করবেন।
2. সকালে নাস্তার পর ও রাতে ঘুমানোর আগে ব্রাশ করবেন।
3. বছরে একবার ডেন্টাল চেকাপ করাবেন।

 

শেষ কথা 

দাঁত হল আমাদের সব চেয়ে সুখের একটা জিনিস, এই কথা কোনো বলছি তার কারণ যার দাঁত আছে সেই এই কথার মর্ম বুঝবে আর যার নেই সে কিচ্ছুই বুঝবে না, আর বুঝলেও আগের জীবনের সুখের কথ্য তার মনে পড়বে। বাংলায় একটা কথা আছে “দাঁত নাই যার পোড়া কপাল তার”। তাহলে বন্ধুরা যেটা যেটা লেখা আছে ওপরে সেটা ব্যাবহার করতে পারেন, আমি আশা করবো তাতে অনেকটাই স্বস্তি মিলবে। আর না মিললে কোনো দিকে না তাকিয়ে সোজা ভালো কোনো একটা দাঁতের ডাক্তারে সাথে যোগাযোগ করতেই হবে। কোনো ছোট ব্যাপার হলেও সেটাকে ফেলে রাখবেন না। শেষে ভয়ানক পরিস্থিতির স্মুখীন হতে হবে আমি আগে থেকে বলে দিলাম। ভালো থাকবেন। দাঁতের যত্ন নিন।

Comments are closed.