চুল পড়া কমাতে পেয়ারা পাতার ব্যবহার

নমস্কার বন্ধুরা আমি শান্তনু আপনাদের সবাইকে আমার এই chalokolkata.com এ স্বাগতম। আশা করি সবাই আপনারা ভালোই আছেন আর  সুস্থ আছেন। বন্ধুরা আমাদের সমাজে চুল পড়া ছেলে মেয়ে উভয়েরই রোজকার সমস্যা হয়ে দাঁড়িয়েছে। আমরা প্রতিনিয়ত এই সমস্যাই ভুগছি। চুল পড়া রোধে দামি দামি ওষুধ ও প্রসাধনী ব্যবহার করে থাকি। কিন্তু কিছুতেও কিছু হয় না। তবে চুল পড়ার বিভিন্ন কারণ রয়েছে। কারণ ভেদেই মূলত চুল পড়া সমস্যার সমাধান করাটাই ভালো। তবে পেয়ারা পাতার ব্যবহারে আপনি পেতে পারেন জাদুকরী সমাধান।

চুল পড়ে যাচ্ছে এই নিয়ে দুশ্চিন্তায় আরও বেশি চুল পড়ে। এ সমস্যা রোধে নানা প্রাকৃতিক উপায় ব্যবহারের কথা শোনা যায়। তবে পেয়ারা পাতা ব্যবহারের বিষয়টি খুব একটি প্রচলিত নয়। কিন্তু এটি বেশ কার্যকরী। কয়েক শো বছর ধরে উত্তর আমেরিকার দেশ মেক্সিকোতে চুল ওঠার পাশাপাশি বিভিন্ন সমস্যা দূর করতে পেয়ারা পাতা ব্যবহার করা হয়।

পেয়ারা ফলের মতো এর পাতাতেও রয়েছে প্রচুর ভিটামিন বি ও সি। এই ভিটামিন দুটি কোলাজেনের সক্রিয়তা বাড়ায়। চুল গজানোর জন্য কোলাজেন সক্রিয় হওয়া খুব জরুরি। এছাড়া পেয়ারা পাতায় প্রচুর অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট এবং জীবাণুনাশক রাসায়নিক রয়েছে, যা মাথার স্ক্যাল্প সুস্থ রাখে। এতে থাকে লাইকোপেন, যা সূর্যের অতি বেগুনি রশ্মি থেকে চুলকে রক্ষা করে।

এক গ্লাস জলে বেশ কয়েকটা পেয়ারা পাতা দিয়ে অন্তত ২০ মিনিট ফোটান। নামিয়ে ঠাণ্ডা করুন। শ্যাম্পু করে চুল শুকিয়ে তাতে এই জল লাগিয়ে নিন।

চুলের গোড়ায় লাগাতে ভুলবেন না‌। দুই ঘণ্টা রেখে ঠাণ্ডা ধুয়ে ফেলুন।

পেয়ারা পাতায় অ্যান্টি ইনফ্লামেটরি, অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট, অ্যান্টি-মাইক্রোবিয়াল উপাদান রয়েছে যা মাথার তালু সুস্থ রাখতে সাহায্য করে। এমনকি এটি মাথার খুশকি হওয়া রোধ করে। ভিটামিন সি মাথার তালুতে ফলিক অ্যাসিডের ভারসাম্য বজায় রেখে নতুন চুল গজাতে সাহায্য করে।

উপকরণ :-

১। এক মুঠো পেয়ারা পাতা

২। ১ লিটার জল

যেভাবে তৈরি করবেন:-

১। একটি পাত্রে জল জ্বাল দিতে দিন। জল ফুটে আসা পর্যন্ত অপেক্ষা করুন।

২। ফুটে এলে এতে পেয়ারা পাতা দিয়ে দিন।

৩। পেয়ারা পাতা দিয়ে ২০ মিনিট জ্বাল দিন।

৪। ২০ মিনিট পর নামিয়ে ফেলুন।

যেভাবে ব্যবহার করবেন:-

১। প্রথমে চুল ভাল করে শ্যাম্পু করে নিন; তবে কন্ডিশনার ব্যবহার করা থেকে বিরত থাকুন।

২। চুল কিছুটা শুকিয়ে এলে চুল বেণী করে তারপর পেয়ারা পাতার জল ঢালুন।

৩। জলটা মাথার তালুতে কমপক্ষে ১০ মিনিট ম্যাসাজ করুন এবং ২ ঘণ্টা রেখে তারপর কুসুম গরম জল দিয়ে ধুয়ে ফেলুন।

কতদিন পর পর ব্যবহার করবেন:-

চুল পড়া বন্ধ করবে যদি চুল পড়া সমস্যা অনেক বেশি থাকে তবে সপ্তাহে তিনবার ব্যবহার করুন এটি চুল পড়া বন্ধ করবে । আর যদি চুল শাইনি সিল্কি করে তুলতে চান তবে সপ্তাহে দুইবার এটি ব্যবহার করুন।

পেয়ারায় রয়েছে ভিটামিন এ, ভিটামিন সি, পটাশিয়াম। এ ছাড়া পেয়ারা পাতায় রয়েছে কিছু অসাধারণ স্বাস্থকর গুণ।

1. পেয়ারা পাতার চা বানিয়ে নিয়মিত খেলে এটি রক্তের বাজে কোলেস্ট্রলের মাত্রা অনেক কমিয়ে দেয়। পেয়ারার পাতা রক্তে ভালো কোলেস্টলের মাত্রা ও বাড়ায়।

2. পেয়ারা পাতার চায়ের মধ্যে থাকা এন্টি ব্যাকটেরিয়াল উপাদানের জন্য এটি ডায়রিয়া ও ডিসেন্ট্রি কমাতে কাজ করে থাকে।

3. কফ ও ব্রঙ্কাইটিস কমাতেও পেয়ারা পাতার চা খুব কার্যকরি।

4. পেয়ারা পাতার চা ওজন কমাতে সাহায্য করে। এটি চর্বি কমাতে কাজ করে এবং পেট ভরা ভরা রাখে। ফলে ওজন কমে যায়।

5. ডায়াবেটিস রোগীদের জন্য নিয়মিত পেয়ারার চা পান করা ভালো। এটি রক্তে কোলেস্টলের মাত্রা কমাতে কাজ করে।

6. পেয়ারা পাতা রক্তচাপ কমাতে সাহায্য করে থাকে। এ পাতা রক্তকে অতিরিক্ত ঘন হওয়ার হাত থেকে রক্ষা করে এবং রক্ত চলাচল সচল রাখে।

7. পেয়ারা পাতা জলে ফুটান। এর পর ঠান্ডা হতে দিন। ঠান্ডা হলে জলে চুলে মাসাজ করুন। এতে চুল পড়া কমবে।

8. পেয়ারা পাতা পরিপাকতন্ত্রের সমস্যা দূর করে। এ পাতায় অনেক ব্যাক্টেরিয়া প্রতিরোধক শক্তি আছে। যা অন্ত্রকে ক্ষারীয় করে জীবানু বৃদ্ধি রোধ করতে সাহায্য করে। এ পাতা অতিরিক্ত মিউকাস ক্ষরণ রোধ করে। তাই ডাইরিয়া বা পরিপাকতন্ত্রের সমস্যা দূর করতে এটি খুবই উপকারি।

9. পেয়ারা পাতা ক্যান্সার রোগের বিরুদ্ধেও কাজ করে থাকে। এ পাতায় প্রচুর এন্টি অক্সিডেন্ট লাইকোফেন থাকে। যা ক্যান্সার প্রতিরোধক হিসেবে কাজ করে। স্তন ক্যান্সার, জরায়ু মুখের ক্যান্সারে এ পাতা খুবই কার্যকর।

10. পেয়ারা পাতা সর্দি-কাশি নিরাময় করে থাকে। এ পাতায় রয়েছে প্রচুর পরিমানে ভিটামিন সি ও আয়রন। যা বেশি মিউকাস ক্ষরনে বাধা দিয়ে থাকে। এটি জীবানুর বংশ বৃদ্ধি রোধ করতেও সাহায্য করে। এ ক্ষেত্রে কাচা পেয়ারা অনেক বেশি উপকারি।

11. পেয়ারা পাতা অ্যালার্জির পাশ্বপ্রতিক্রিয়া রোধক হিসেবে কাজ করে। এ পাতা দেহে হিস্টামিন তৈরি প্রক্রিয়া নিরাময় করে থাকে। পোকা মাকড়ের কামড়ে ফুলে গেলেও পেয়ারা পাতার ব্যবহার খুবই উপকারি।

12. পেয়ারা পাতা ব্রন কমাতেও সাহায্য করে থাকে। এ পাতায় থাকা ভিটামিন সি ব্রন কমাতে অনেক ভালো কাজ করে থাকে। এ পাতার সঠিক ব্যবহার মুখের কালো দাগও দূর করে থাকে।

Comments are closed.