জেনে নিন থাইরয়েড সমস্যার খুব সহজ সমাধান – থাইরয়েডের সমস্যায় করণীয়

আগেই বলে নিচ্ছি কেননা আপনারা পরে ভুলে যান। বাকি বন্ধুদের সাহায্যের উদ্দেশে লাইক আর শেয়ারটা  মনে করে করে দেবেন। শুরু করছি আজকের বিষয় –


নমস্কার বন্ধুরা আমি শান্তনু আপনাদের সবাইকে আমার এই chalokolkata.com এ স্বাগতম। আশা করি সবাই আপনারা ভালোই আছেন আর  সুস্থ আছেন। বন্ধুরা আজ আমি আপনাদের থাইরয়েড সমস্যার কিছু সহজ উপাদান নিয়ে আলোচনা করবো। থাইরয়েড সমস্যা এখন ঘরে ঘরে বললেই চলে। এমন অনেক মানুষ আছেন যারা একমাত্র এই থাইরয়েড সমস্যার জন্য ভুলে যাচ্ছেন, আর তার থেকেই বাড়ছে নানান রোগ। আমরা আজকে এর ব্যাপারেই বিস্তারিতও আলোচনা করবো। থাইরয়েড হলে কি খাওয়া উচিত, থাইরয়েড কি খাওয়া বারণ, থাইরয়েড কি ভালো হয় ইত্যাদি ইত্যাদি। 

আমাদের দেহের থাইরয়েড গ্রন্থি বিভিন্ন জটিল কার্যক্রমের জন্য দায়ী তাই যেকোনো উপায়ে একে ভাল রাখা অনেক গুরুত্বপূর্ণ । সারা বিশ্বে লক্ষ লক্ষ মানুষের মাঝে রয়েছে থাইরয়েড সমস্যা। থাইরয়েড গ্রন্থি থেকে সন্তোষজনক পর্যায়ে কাজ পেতে হলে কিছু কাজ এখনই শুরু করতে পারেন।

থাইরয়েডের সঠিক কার্যক্রমের উপর আমাদের দেহের সামগ্রিক স্বাস্থ্য ও এর কার্যক্রমের উন্নতি নির্ভর করে। থাইরয়েড গ্ল্যান্ডের বিভিন্ন ধরনের হরমোন নিঃসরণের উপর দেহের বিভিন্ন ধরনের কাজ সঠিকভাবে সম্পন্ন হওয়া নির্ভর করে। যদি থাইরয়েড গ্ল্যান্ড খুব বেশি হরমোন নিঃসৃত করে তাহলে বুঝতে তা প্রয়োজনের অতিরিক্ত কার্যকরী। আবার যখন প্রয়োজনের তুলনায় কম হরমোন নিঃসরণ করে তখন তা কম সক্রিয়। এই দুই অবস্থাকেই থাইরয়েডের কর্মহীনতা বলে। থাইরয়েড গ্রন্থির এই দুই অবস্থাতেই হরমোনের মাত্রা তীব্রভাবে পরিবর্তনের ফলে তা দেহের উপর মারাত্মক প্রভাব ফেলে এবং তা সঠিকভাবে কাজ করতে পারেনা। উন্নত মানের জীবনযাপনের জন্য থাইরয়েডের সমস্যা দেখা দেয়ার সাথে সাথে তা ঠিক করা জরুরি।

থাইরয়েড গ্রন্থি সঠিকভাবে কাজ করার জন্য কিছু ভেষজ উদ্ভিদ ঔষধ হিসেবে কাজ করে। যখন দেহে থাইরয়েড সঠিকভাবে কাজ করে তখন দেহতন্ত্র ও এর কাজগুলো সাধারণত সুষ্ঠু ভাবে সম্পন্ন হয়। দেহের কিছু গুরুত্বপূর্ণ কাজ সম্পন্ন করতে থাইরয়েড হরমোন সাহায্য করে।

যেমন-

ইলেট্রোলাইট পরিবহন

পেশী ও কার্ডিয়াক কার্যকলাপ নিয়ন্ত্রণে রাখা

হাড়ের পুনর্গঠন

শিশু বয়সের বৃদ্ধি নিয়ন্ত্রণ

মহিলাদের মাসিক চক্র নিয়ন্ত্রণে সাহায্য কর

কোষীয় প্রোটিনের সংশ্লেষণ

শরীরের খাবার গ্রহণ করার ও তা শক্তিতে রুপান্তর করার ক্ষমতাকে নিশ্চিত করা

বিপাক ক্রিয়া নিয়ন্ত্রন করা

বিটা ক্যারোটিনকে রুপান্তরিত করে ভিটামিন এ তৈরি করা

 মানসিক অবস্থা নিয়ন্ত্রণে সাহায্য করা

থাইরয়েডের ভারসাম্যহীন অবস্থা নিয়ন্ত্রণে সাহায্য করে কিছু প্রাকৃতিক ভেষজ উপাদান। এই ভেষজগুলো কেউ চাইলে এমনিতেই খেতে পারে অথবা চা তৈরি করে অথবা ক্যাপসুল বা ঔষধ হিসেবে খেতে পারে। তাই থাইরয়েড গ্রন্থির থেকে সবচেয়ে বেশি উপকারিতা পাওয়ার জন্য সঠিক পরিমানে সেসব ভেষজ ঔষধ গ্রহন করা খুবই গুরুত্বপূর্ণ। থাইরয়েড স্বাস্থ্যকে উন্নত করতে সবারই উচিত এসব ভেষজ উপাদান গুলো সম্পর্কে জেনে রাখা এবং যে উপাদানটি যার জন্য ভালো কাজ করে তা গ্রহণ করা।

আদা

অনন্য ঔষধিগুন সম্পন্ন আদা সাধারণত বমি বমি ভাব ও পেটের সমস্যার জন্য বেশ ভাল কাজ করে আবার এটি থাইরয়েডের জন্যও আদর্শ। এর কারন হচ্ছে আদা তে রয়েছে উচ্চ মাত্রার জিংক, ম্যাগনেসিয়াম ও পটাসিয়াম যা থাইরয়েডের অবস্থা ভালো রাখতে প্রয়োজন। তবে উপকারিতা বেশি পেতে হলে অবশ্যই তাজা আদা গ্রহণ করতে হবে। ভাল উপকার পেতে আদা কুচি খাওয়া যায় বা আদা দিয়ে চা তৈরি করা খাওয়া যায়। আদা দিয়ে তৈরি করা চা কুসুম গরম অবস্থায় অর্গানিক মধু মিশিয়ে খেলে খুবই উপকার পাওয়া যায়। গরম অবস্থায় মধু কখনো মেশানো যাবে না কারন এতে মধুর কার্যকারিতা নষ্ট হয়ে যায়।

তিসিবীজ

এটিও সাধারণত হজমতন্ত্রের জন্য বেশ উপকারী কারন হচ্ছে এটি উচ্চখাদ্য আঁশ সমৃদ্ধ। তিসিবীজ থাইরয়েডের জন্যও ঔষধের মত কাজ করে। যাদের ক্ষেত্রে থাইরয়েড গ্রন্থি থেকে হরমোন নিঃসরণ কম হয় তাদের ক্ষেত্রে নিয়মিত ভাবে তিসিবীজ খেলে সেই নিঃসরণের পরিমান বৃদ্ধি পায়।খুব বেশি পরিমান না খেয়ে প্রতিদিন ১ টেবিল চামচ করে খেলে এর সম্পূর্ণ উপকারিতা পাওয়া সম্ভব হবে। তিসিবীজ গুড়ো করে যেকোনো পানীয়ের সেটা চা হোক বা কোনো অন্য পানিও সাথে মিশিয়ে খেতে পারেন নয়তো যেকোনো খাবারের সাথে মিশিয়ে খেতে পারেন।

বিচুটি পাতা

এই পাতা অতিরিক্ত কার্যকরী ও কম কার্যকরী দুই ধরনের থাইরয়েডের সমস্যার ক্ষেত্রেই উপকারী। এটি থাইরয়েডের টনিক হিসেবে খেতে বলা হয় কারন এতে থাকে প্রচুর পরিমাণ আয়োডিন যা খেলে এই পুষ্টি উপদানের অভাব পূরণে ঔষধের মত কাজ করে। এই পাতা দিয়ে চা তৈরি করে খাওয়া হচ্ছে সবচেয়ে সহজ ও উপকারী। এগুলো ছাড়াও প্রোটিন জাতীয় খাবার যেমন বাদাম, ডাল, মাছ ও মুরগি খেতে পারেন। শস্য জাতীয় খাবার খেতে হবে আর চিনি, ক্যাফেইন সমৃদ্ধ খাবার ও টিনজাত খাবার বর্জন করুন। কম কার্যকর থাইরয়েডের সমস্যার জন্য প্রতিরোধক হিসেবে অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট কাজ করে। এই অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট বিভিন্ন ধরনের সবজি, ফল ও ভেষজ উপাদানে পাওয়া যায় যেমন ব্রকলি, স্কোয়াস, জাম্বুরা, রসুন ইত্যাদি।

শেষ কথা 

আজকাল বেশির ভাগ ঘরেই নতুন একটা সমস্যা আমদানী হয়েছে। নাম ‘থাইরয়েড’। বিশেষ করে মহিলারদের মধ্যেই এই রোগ বেশি দেখা দিচ্ছে। থাইরয়েড নিয়ে আগের লেখাতে অনেক কথাই আলোচনা করা হয়েছে।  কি কি খেলে থাইরয়েডের হাত থেকে সুস্থ থাকা যাবে তার জন্য নিচের লিঙ্ক এ ক্লিক করতে হবে। ভালো থাকবেন সুস্থ থাকবেন।

থাইরয়েড রোগ হলে কি খাবেন আর কি খাবেন না পুরো ডায়েট চার্ট যেনে নিন – Thyroid Diet Food List In Bengali

 



Comments are closed.