চুল তেলতেলে ? চুটকিতে সমাধান পেতে মেনে চলুন ঘরোয়া উপায়

আগেই বলে নিচ্ছি কেননা আপনারা পরে ভুলে যান। বাকি বন্ধুদের সাহায্যের উদ্দেশে লাইক আর শেয়ারটা  মনে করে করে দেবেন। আর্টিকেল এর একদম নিচের দিকে মানে – ফোন বা ল্যাপটপ বা আপনি যাতে পড়বেন তার একদম শেষে আমাদের কমেন্ট বাক্স থাকে সেখানে গিয়ে আপনি আপনার মতামত জানাতে পারবেন। শুরু করছি আজকের বিষয় –


নমস্কার বন্ধুরা আমি শান্তনু আপনাদের সবাইকে আমার এই chalokolkata.com এ স্বাগতম।   আশা করি সবাই আপনারা ভালোই আছেন আর  সুস্থ আছেন। বন্ধুরা আজ আমরা জেনে নেবো যে –

কথাতেই আছে জলে চুন তাজা তেলে চুল তাজা। কিন্তু তেল, জল, শ্যাম্পু দিয়ে যতই চুলের পরিচর্যা করুন না কেন, দিনের শেষে চুলে একটা তেলতেলে ভাব অনুভব করেন? এটা শুধু আপনি নয়, আপনার মতো অনেকেই রয়েছেন যাঁরা এই ধরণের সমস্যায় ভুগে থাকেন। এর জন্য দায়ী আপনার অয়েলি স্ক্যাল্প।

আর অয়েলি স্ক্যাল্প যাদের থাকে তাদের চুল নিজের স্বাভাবিক রূপ হারিয়ে ফেলে চিটচিটে হয়ে যায়। যারা প্রতিদিন বাইরে বেরোন তাদের ক্ষেত্রে সমস্যাটা আরও বেশি। কারণ স্ক্যাল্পের তৈলাক্ত ভাবের সঙ্গে বাইরের ধুলো-বালি মিশে গিয়ে তা চুলের গোড়ায় জমে এবং তার ফলে চুল পড়ে যাওয়ার সম্ভাবনা কয়েক গুণ বেড়ে যায়। তবে এই সমস্যা থেকে মুক্তি পাওয়ার কিছু খুব সহজ উপায় রয়েছে।

1. সপ্তাহে একদিন হট অয়েল ম্যাসাজ

এ অনেকটা তেলা মাথায় তেল দেওয়ার মতো। নারকেল তেলের সঙ্গে খানিকটা বাদাম তেল মিশিয়ে নিন। এবার একটি পাত্রে গরম জল নিন। এবার তেলের বাটিটি গরম জলের মধ্যে রাখুন। ওই তেল মাথায় ম্যাসাজ করুন। সারা রাত শাওয়ার ক্যাপ পরে ঘুমিয়ে পড়ুন। পরের দিন ভালো করে শ্যাম্পু করে নিন। সপ্তাহে দুই থেকে তিনবার এটি অ্যাপ্লাই করতে পারেন।

তবে যাদের ঠাণ্ডা লাগার ধাত আছে তারা সকালে এটি ব্যবহার করুন ২ ঘণ্টা মাথায় রাখুন। তারপর শ্যাম্পু করুন। রাতে লাগিয়ে রাখার দরকার নেই, ঠাণ্ডা লাগার ধাত থাকলে।

2. গ্রিন টি

গ্রিনটিতে রয়েছে অতিরিক্ত পরিমাণে অ্যান্টি অক্সিডেন্ট, যা মাথার তালু থেকে অতিরিক্ত তেল নিঃসরণে বাধা দেয়। এরজন্য গ্রিনটি’র লিকার স্নানের পর স্ক্যাল্পে ভালো করে ম্যাসাজ করুন। ৫ মিনিট রেখে ধুয়ে ফেলুন। সপ্তাহে তিন থেকে চারবার এটি ব্যবহার করুন দু সপ্তাহে তফাৎ দেখতে পাবেন নিজের চোখে।

3. ওটমিল

ওটসে খানিকটা গরম জল মিশিয়ে একটা পেস্ট তৈরি করে নিন। মিশ্রণটি ঠান্ডা হলে তা মাথায় লাগান। এইভাবে মাথায় ১০ মিনিট রেখে দিন। তারপর শ্যাম্পু করে নিন। ওটমিল চুলের অতিরিক্ত তেল শুষে নিতে সাহায্য করে। সপ্তাহে দুবার এটি অ্যাপ্লাই করুন।

4. পাতি লেবু

তৈলাক্ত চুলকে সিল্কি বানাতে পাতি লেবু হল এক অব্যর্থ উপাদান। সেক্ষেত্রে একটা গোটা পাতিলেবু এক কাপ জলে মিশিয়ে নিন। প্রতিদিন স্নানের পর এই সলিউশন আপনার চুলের গোড়ায় ভালো করে ম্যাসাজ করে নিন। তারপর আর একবার ভালো করে চুল ধুয়ে নিন।

5. অ্যালোভেরা জেল

ত্বক হোক বা চুল অ্যালোভেরার থেকে ভালো বোধহয় আর কিছুই হতে পারে না। সেক্ষেত্রে ১ কাপ জলের সঙ্গে, ১ টেবিল চামচ লেবুর রস এবং ২ টেবিল চামচ অ্যালোভেরা জেল মিশিয়ে নিন। মিশ্রণটি স্নানের আগে মাথায় ভালো করে মেখে নিন। ৫ মিনিট মতো রেখে ভালো করে শ্যাম্পু করে নিন। এই সলিউশনটি সপ্তাহে ২দিন ব্যবহার করুন।

6. অ্যাপেল সিডার ভিনিগার

রূপচর্চার জন্য অ্যাপেল সিডার ভিনিগার খুবই উপকারি একটি জিনিস। চুলের তৈলাক্ত ভাব দূর করতে এটি খুবই কার্যকর। আর এর জন্য এক কাপ জলে ১/৪ কাপ পরিমাণ অ্যাপেল সিডার ভিনিগার মিশিয়ে নিন। স্নানে যাওয়ার আগে মিশ্রণটি মাথায় লাগিয়ে নিন। ৫ মিনিট রাখুন তারপর ধুয়ে ফেলুন। এই সলিউশন ব্যবহার করলে শুধু চুলের তেলতেলে ভাবই নয়, খুশকির সমস্যাও দূর হয়। সপ্তাহে একবার করে এটি ব্যবহার করুন।

7. বেকিং সোডা

বেকিং সোডা চুলের তেলতেলে ভাব দূরে রেখে চুলকে সিল্কি করে তুলতে সাহায্য করে। এর জন্য ১-চামচ বেকিং সোডার সঙ্গে ৩-৪ চামচ জল মিশিয়ে তা শ্যাম্পু করার পর চুলে লাগিয়ে ভালো করে লাগিয়ে রাখুন ১০ মিনিট। তারপর ধুয়ে নিন।

এ তো গেলো ঘরোয়া পদ্ধতি ব্যবহারের কথা, তবে এর পাশাপাশি কিছু নিয়ম রয়েছে, তা যদি মেনে চলেন তাহলে চুলের তেলতেলে ভাব দূর করতে পারবেন খুব সহজেই।

1. খুব শক্ত করে কখন চুল বাঁধবেন না। কারণ আপনার চুলের গোড়ায় যত টান পড়বে, ততই গ্রন্থিগুলি থেকে তেল নিঃসরণ বেড়ে যাবে।

2. চুলে শ্যাম্পু করুন নিয়মিত। প্রতিদিন শ্যাম্পু করলে তেল-ঘাম চুলের গোড়ায় বসতে পারে না।

3. তবে একান্তই যদি তাড়া থাকে এবং চুল তেল তেলে দেখায় তাহলে ভাল বেবি পাউডার মাথায় ছিটিয়ে নিন। তারপর এটি চুলের গোড়ায় খুব ভাল করে বসলে চুল আচড়ে নিন। বেবি পাউডার অতিরিক্ত তেল শুষে নিতে সাহায্য করে।

4. বাইরে বেরোলে যথাসম্ভব চুল বেধে রাখার চেষ্টা করুন।

শেষ কথা 

তাহলে বন্ধুরা, পুরোটা ভালো করে পড়লেন তো নাকি ? নাকি ওপরের একটু আর নিচের একটু পরেই হয়ে গেলো। পুরোটা পড়ুন আর সেভ করে রাখুন। আর স্টেপ গুলো এক এক করে মানতে শুরু করুন দেখবেন কিছু দিনের মধ্যেই আপনি মজা পাবেন। এবার আর চুল নিয়ে বা চুল ভেঙে যাওয়া নিয়ে নিশ্চয়ই আর কোনও চিন্তা নেই। ভালো থাকুন সুস্থ থাকুন। খুব সোজা ঘরোয়া পদ্ধতি বলে দিলাম আপনারা ব্যাবহার করবেন। ভালো থাকবেন। আর কমেন্ট করবেন।



Comments are closed.