এপেনডিসাইটিস এর লক্ষণ, উপসর্গ, লক্ষণ, প্রতিকার ও চিকিত্‍সা – Appendicitis Treatment In Bengali

0

আগেই বলে নিচ্ছি কেননা আপনারা পরে ভুলে যান। বাকি বন্ধুদের সাহায্যের উদ্দেশে লাইক আর শেয়ারটা  মনে করে করে দেবেন। শুরু করছি আজকের বিষয় –


নমস্কার বন্ধুরা আমি শান্তনু আপনাদের সবাইকে আমার এই chalokolkata.com এ স্বাগতম।   আশা করি সবাই আপনারা ভালোই আছেন আর  সুস্থ আছেন। আজ আমি  আপনাদের বলবো যে এপেন্ডিসাইটিস এর ব্যাপারে।

বন্ধুরা আমাদের জীবন যাপনের মধ্যে অনেক সময় সবার হসপিটালের মুখ দেখতেই হয়। কখনো বোরো কোনো কারণে আবার কখনো ছোট কোনো কারণে। এখনকার জীবনে রোগ যেন আমাদের পিছন ছারে না। তার মধ্যেই আছে এপেন্ডিসাইটিস। আজ আমরা জেনে নেবো এই বিষয়ে। আমরা আরও জন্য যে – এপেন্ডিসাইটিস কোন পাশে হয়, এপেন্ডিসাইটিস অপারেশনের খরচ কত, পেটের বাম পাশে ব্যথা, এপেন্ডিসাইটিস হয় কি কারনে  ইত্যাদি ইত্যাদি।

বন্ধুরা আমাদের জীবনে কখনো কখনো হঠাত্‍ করেই আপনার বা আপনার বাড়ির কারো প্রচণ্ড পেটব্যথা শুরু হল । আস্তে আস্তে এই ব্যথা বেড়ে প্রথমে নাভির চারপাশ থেকে ছড়িয়ে পরে। তারপরে তলপেটের একটু ডান দিকে গিয়ে একটা জায়গায় স্থির হয় । হয়তো আপনি ডাক্তারের কাছে গেলেন তারপর জানতে পারলেন আপনার বা আপনার পরিবারের কারোর মানে আপনার পেশেন্টের এপেন্ডিসাইটিস ধরা পড়লো আর সেটা আজকের মধ্যেই সার্জারি করতে হবে । খুবই চিন্তার বিষয়।

কী এই এপেনডিসাইটিস (Appendicitis) ?

আমাদের বৃহদন্ত্র নলের মতো ফাঁপা । বৃহদন্ত্রের তিনটি অংশের মধ্যে প্রথম অংশ হচ্ছে সিকাম । এই সিকামের সাথে ছোট একটি আঙ্গুলের মত দেখতে প্রবৃদ্ধি হল এপেনডিক্স । কোন কারণে যদি এর মধ্যে পাঁচিত খাদ্য , মল বা কৃমি ঢুকে যায় , তাহলে রক্ত ও পুষ্টির অভাব দেখা দেয় । নানান জীবাণুর আক্রমণে এপেনডিক্সের ঐ অংশে বিভিন্ন উপসর্গ দেখা দেয় । একেই এপেনডিসাইটিস বলে ।

এপেন্ডিসাইটিস কোন পাশে হয়

এপেন্ডিক্স হচ্ছে একটি সরু টিউব আকৃতির থলি যা বৃহদান্ত্রের বাইরের প্রলম্ববিত অংশ। এটি ৬ ইঞ্চি লম্বা এবং পেটের নিচের দিকে ডান পাশে অবস্থিত।

এপেনডিসাইটিস এর লক্ষণ ও উপসর্গ 

পেট ব্যথা

প্রথমে নাভির চারপাশ থেকে পরে তলপেটের একটু ডান দিকে গিয়ে স্থির হয় । সময়ের সাথে ব্যথার পরিমাণ বাড়ে । রোগির তলপেটে হাত দিলেই ব্যথা অনুভূত হয় , শক্ত অনুভূত হয় ।

বমি

বার বার বমি ভাব হয় , বমি হতে পারে ।

জ্বর

রোগির দেহে জ্বর আসতে পারে ।

যদি এপেনডিক্স ফেটে যায় তাহলে হঠাত্‍ ব্যথা কমে গিয়ে ভাল লাগতে থাকবে , কিন্তু তখন ফ্লুইড পেটের ভেতরে অন্যান্য ফাঁকা স্থানে ( Abdominal cavity ) ছড়িয়ে পড়ে অবস্থা আগের থেকে খারাপ হয়ে যাবে ।

এপেনডিসাইটিস এর চিকিত্‍সা

২৪ ঘন্টার মধ্যে সার্জারি করে এপেনডিক্স অপসারণ বা এপেনডেকটমি । তবে যদি সার্জারির সুযোগ ওই মুহূর্তে না থাকে তাহলে  মুখে কিছু না খাওয়া রাইলস টিউব সাকশন দেয়া ব্যাথা নাশক ও সিডেশন দেয়া এন্টিবায়োটিক দেয়া
বাওয়েল সচল রাখার ব্যবস্থা করা

অপারেশনের পর সমস্যা

অ্যাপেন্ডিক্সের কাজ এতোই নগণ্য যে, এটি কেটে ফেললেও শরীর তেমন কোনো সমস্যা দেখা দেয় না। স্বাভাবিক কাজকর্ম করা সম্ভব। খাওয়া-দাওয়াতেও কোনো ধরনের সমস্য হয় না।
যেহেতু অপারেশন করে এপেনডিক্স কেটে ফেলে দেয়া হয়, তাই পুনরায় এপেনডিসাইটিস হবার কোন সম্ভাবনা নেই।



Leave A Reply

Your email address will not be published.