কাপড়ে তিলা পড়লে ও কাপড়ের তেলের দাগ তোলার উপায়

আগেই বলে নিচ্ছি কেননা আপনারা পরে ভুলে যান। বাকি বন্ধুদের সাহায্যের উদ্দেশে লাইক আর শেয়ারটা  মনে করে করে দেবেন। শুরু করছি আজকের বিষয়। 


নমস্কার বন্ধুরা আমি শান্তনু আপনাদের সবাইকে আমার এই chalokolkata.com এ স্বাগতম। আশা করি সবাই আপনারা ভালোই আছেন আর  সুস্থ আছেন। বন্ধুরা আজ একটু টেস্ট টা  পাল্টাই। আজ একদম নতুন রকমের টপিক যেটা আমায় বেশ কিছু মানুষ কমেন্ট বা জিজ্ঞাসা করেছে। অনেক কিছু ঘাটাঘাটি জিজ্ঞাসা বাদ করে কিছু তথ্য সংগ্রহ করা হয়েছে যা আজ আমি আপনাদের বলবো বা আপনাদের সাথে শেয়ার করবো।

আজ আমি আপনাদের বলবো যে খুব তাড়াতাড়ি চট করে আপনাদের দামি কাপড় জামার কঠিন থেকে কঠিনতম দাগ কিভাবে ভ্যানিস করবেন। আমরা আরও জানবো যে –  কাপড়ের তিলা তোলার উপায়, কাপড়ের তিল দূর করার উপায়, কাপড়ের চিতি দূর করার উপায়, কাপড়ে ব্লিচিং পাউডার ব্যবহারের নিয়ম, কাপড়ের দাগ উঠানোর উপায়, কাপড়ের কালো দাগ দূর করার উপায়, সাদা কাপড়ে অন্য কাপড়ের দাগ তোলার উপায়, কাদার দাগ তোলার উপায় ইত্যাদি ইত্যাদি। 

সবার আগে আমাদের জানতে হবে যে কাপড়ে তিলা পড়ে কেন ?? আর কোনোই বা ছাতকুড়া পরে ?

ছত্রাক জনিক আক্রমণ সেগুলো। এদের মাইসেলিয়ামগুলো কাপড়ের তন্তুর সাথে আটকে ফেলে। এরা সাধারণত কালো বর্ণের।ব্লিচ ব্যবহার করলেই উঠে যাবে।

 

কাজে বেরিয়ে হঠাৎ ঝুম বৃষ্টিতে পড়লেন হয়তো গেল ভিজে পোশাকটা। কিছু করার নেই। তবে বাড়ি ফিরে সেই কাপড় ধুয়েই নিতে হবে, নইলে কাপড়টা খারাপ  হতে পারে। কৃত্রিম তন্তুর কাপড় ভিজলেও শুকিয়ে যায় সহজেই। তাই বর্ষার মৌসুমে এ ধরনের পোশাক বেছে নেয়াই ভালো। অন্যদিকে, এসময় ভেজা কাপড়ে তিলা পড়ার সম্ভাবনা থাকে।

আরও জানুন – কাপড় থেকে যে কোন দাগ তোলার সঠিক উপায় – How To Remove Old Stains From Clothes Naturally

কাপড়ে তিলা পড়লে করণীয়

কাপড়ে তিলা পড়লে সেটা ডিটারজেন্ট বা শ্যাম্পু দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। এরপর শুকিয়ে নিন ভালোভাবে। যে কাপড় চাইলেই ধোয়া যাবে না, সেগুলো হালকা ব্রাশ (সফট কোট ব্রাশ) করে দেখুন তিলার দাগ ওঠে কি না। এরপর রোদে দিয়ে নিন।

অবশ্য বেশ পুরোনো হলে ড্রাই ওয়াশ করতে হবে, অর্থাৎ পেশাগতভাবে দক্ষ কারো শরণাপন্ন হতে হবে, যারা রাসায়নিকের সাহায্যে এই দাগ দূর করার চেষ্টা করতে পারেন। তবে কিছু তিলা হাজার চেষ্টায়ও দূর করা যায় না। সাধারণত দীর্ঘদিনের পুরোনো তিলার ক্ষেত্রে এরকম হয়। তাই তিলা প্রতিরোধ করাই কাপড় ভালো রাখার সবচেয়ে ভালো উপায়।

 

বর্ষার সময় কাপড়ে ফাঙ্গাস পড়ে

বর্ষার সময় আলমারিতে রাখা কাপড়ে ফাঙ্গাস পড়ে। এ কথা প্রায় সবারই জানা। তাই ভেজা মৌসুমে কাপড়ের বাড়তি যত্ন নিতে কেউ ভুলেন না। তবে গরমের ফাঁকে ফাঁকে বৃষ্টির সময়ও ওয়্যারড্রোব বা আলমারিতে রাখা পোশাকের বাড়তি যত্ন নিতে হয়। দেশীয় ফ্যাশন ঘর বিবিয়ানার কর্ণধার লিপি খন্দকার বলেন, “আবহাওয়া যে রকমই হোক, এই মৌসুমে ঘাম হবেই। তাই একবার পরা কাপড় পরের দিন ব্যবহার না করে ধুয়ে দিন।” “শুধু ধুলেই হবে না, শুকানোর পর কড়া ইস্ত্রি করে তারপর আলমারিতে কাপড় তুলে রাখুন। কারণ ধোয়া কাপড় কড়া ইস্ত্রি করে রাখলে ফাঙ্গাস বা ছাতা পড়ার কোনো সম্ভাবনা থাকে না।

কাপড় থেকে ছিতি মানে ছাতকুড়া তুলতে প্রথমে আপনাকে কাপড়টাকে ভেজাতে হবে এবং যেখানে দাগ গুলো আছে সেখানে ব্লিচিং পাউডার ব্যবহার করুন। অতিরিক্ত সময় ধরে ব্লিচিং পাউডার ব্যবহার ব্যবহার করলে কাপড় পোড়া/দাগ হতে পারে। **এর পর সাবান দিয়ে ধুয়ে শুকাতে দিন।
কাঁপড় থেকে চিতি বা তিলা দুর করার জন্য আপনি ব্লিচিং পাউডার ব্যবহার করতে পারেন। আপনি পানি আর ব্লিচিং পাউডার ভালোভাবে মিশিয়ে তাতে কাঁপড় কিছুক্ষন রেখে দিন, কমপক্ষে ১৫ মিনিট। ব্লিচিং পাউডারের সাথে কাঁপড় কাচা সোডা মিশিয়ে নিলে ভালো হয়। কাঁপড় কমপক্ষে ১৫ মিনিট ভিজিয়ে রাখার পর সেটি পরিস্কার পানি দিয়ে ধূয়ে ফেলুন। ব্যাস এবার দেখুন, কাঁপড়ের চিতির দাগ দুর হয়ে গেছে।
শেষ কথা 
কাপড়ের যত্ন নিতে গেলে আপনাকে ওপরের লেখা গুলো মন দিয়ে পড়লেই অনেকটাই লাভবান হবেন। নষ্ট হবে না আপনার কাপড় জামা।


Comments are closed.