২ টি করে ডিম খেলে শরীরে হবে অসাধারণ পরিবর্তন জেনে নিন

0

নমস্কার বন্ধুরা আমি শান্তনু আপনাদের সবাইকে অনেক অনেক ভালোবাসা ও স্বাগতম আমার এই পেজ এ। আশা করবো আমার প্রত্যেক লেখা আপনাদের অনেকটাই উপকার করতে সাহায্য করবে ও আশা করবো ভালো লাগবে আপনাদের। বন্ধুরা আপনারা কি জানেন প্রতিদিন ২ টি করে ডিম খেলে শরীরে কি পরিবর্তন হয় জানেন ? জানলে অবাক হবেন…

আজকালকার দিনে সবাই স্লিম থাকতে চায়, কেউ মোটা হতে চায়না। কিছু বছর আগে পর্যন্ত মনে করা হত ডিম খাওয়া শরীরের পক্ষে একদমই ভালো নয়। তাই অনেকে ডিম খেতে ভয় পায়। কিন্তু এসব ধারনা ভুল। ডিম আসলে শরীরকে সুস্থ রাখে, শক্তি বাড়ায়। কিন্তু ঠিক কতগুল ডিম খাওয়া যেতে পারে সে বিষয়ে অনেকেরই ধারণা নেই। আসুন তাহলে জেনে নিন প্রতিদিন ডিম খাওয়ার উপকারিতা…

1. একটি ডিম খেলে শরীরে কখনো পুষ্টির অভাব হয়না। ডিমে থাকা ভিটামিন বি ১২ আপনার শরীরে প্রবেশ করে সেটিকে এনার্জি ও শক্তিতে রূপান্তর করে। এই ছোট্ট একটা ডিমের হাজার গুণ।

2. ডিমে আছে ভিটামিন এভিটামিন এ দৃষ্টিশক্তি বাড়াতে সাহায্য করে। এতে থাকা ক্যারোটিনয়েড, ল্যুটেন প্রভৃতি উপাদান বয়সকালে চোখের সমস্যা থেকে দূরে রাখে।

3. কেবলমাত্র ডিমের মধ্যে রয়েছে ভিটামিন ডি। এই ভিটামিন পেশীর শক্তি বাড়াতে সাহায্য করে। তাই শরীর পেশিবহুল করতে রোজ ডিম খান।

4. ডিমের সবথেকে বড় গুণ হল এটি ওজন কমাতে সাহায্য করে। সকালে ডিম খেলে সারাদিন পেট ভরা থাকে। বারবার খিদেও পায়না আর বার বার খেতেও হয়না। ফলে আপনার ওজন বাড়ার ভয় থাকেনা।

5. ডিমে আছে আয়রন, জিঙ্ক, ফসফরাসের মতো উপাদান। মেন্সট্রুয়েশনের জন্য মেয়েদের অনেক সময় অ্যানিমিয়া দেখা দেয়। যা শরীর দূর্বল করে দেয়। ডিমে থাকা আয়রন শরীরের এই ঘাটতি মেটায়। জিঙ্ক শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়িয়ে দেয় আর ফসফরাস হাড় ও দাঁত মজবুত করে।

6. প্রত্যেক নারীর শরীরে রোজ কমপক্ষে ৫০ গ্রাম প্রোটিনের দরকার। একটি ডিমে থাকে ৭০-৮৫ ক্যালোরি বা ৬.৫ গ্রাম প্রোটিন। তাই রোজ ডিম খেলে মেয়েদের শরীরে প্রোটিনের চাহিদা মেটে।

7. ২০১৩ সালে হার্ভার্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের একটা সমীক্ষায় গবেষকরা জানিয়েছেন যে ডিম মেয়েদের ব্রেস্ট ক্যান্সার হওয়ার সম্ভাবনা কম করে দেয়। সপ্তাহে ৬টি করে ডিম খেলে মেয়েদের এই সমস্যার সম্ভাবনা ৪৪% কমে যায়। তাছাড়াও ডিম হার্টে রক্ত জমাট বাঁধতে দেয়না। হার্ট অ্যাটাকের সম্ভাবনা অনেকটাই কমিয়ে দেয়।

8. শরীর সুস্থ রাখার আর একটি উপাদান হল কোলাইন। কোলাইনের ঘাটতি ঘটলে অনেক সময় কার্ডিওভাসকুলার, লিভারের অসুখ বা নিউরোলজিক্যাল ডিজ-অর্ডার দেখা দিতে পারে। ডিমে প্রচুর পরিমাণে কোলাইন থাকে, যা মস্তিস্ক, স্নায়ূ, যকৃত নিয়ন্ত্রনে রাখে।

9. নতুন একটি সমীক্ষায় জানা গেছে ডিম কোলেস্টেরল বাড়তে দেয়না। রোজ ডিম খেলে শরীরে কোলেস্টেরলের পরিমাণ বজায় থাকে।

10. নখ ভেঙে যাচ্ছে বা চুলের স্বাস্থ বেহাল ? চোখ বন্ধ করে রোজ দুটি করে ডিম খান। ডিমের মধ্যে থাকা সালফার ম্যাজিকের মতো নখ আর চুলের মান উন্নত করবে।

Leave A Reply

Your email address will not be published.