পা ফাটা থেকে মুক্তির উপায় – Heel Crack Treatment at Home

আগেই বলে নিচ্ছি কেননা আপনারা পরে ভুলে যান। বাকি বন্ধুদের সাহায্যের উদ্দেশে লাইক আর শেয়ারটা  মনে করে করে দেবেন। শুরু করছি আজকের বিষয় –


নমস্কার বন্ধুরা আমি শান্তনু আপনাদের সবাইকে আমার এই chalokolkata.com এ স্বাগতম।   আশা করি সবাই আপনারা ভালোই আছেন আর  সুস্থ আছেন। আজ আমি  আপনাদের সবার জন্য একটা দারুন টপিক নিয়ে কথা বলবো সেটা হল – পায়ের গোড়ালি ফাটার চিকিৎসা আমরা আরও জন্য যে, পায়ের গোড়ালি ফাটার ক্রিম

পা ফাটার ক্রিম, পা ফাটা দূর করার ক্রিম, হাত ফাটার সমাধান, পা ফাটা থেকে মুক্তির উপায়, হাত ফাটা দূর করার উপায়, হাত পা ফাটা দূর করার উপায় ইত্যাদি ইত্যাদি। চলুন তাহলে শুরু করা যাক।

বন্ধুরা আমাদের পা, হাত ঠোঁট ইত্যাদি ফাটে বেশিরভাগ শীতকালে। তবে এমন অনেক মানুষ আছেন যাদের ১২ ম্যাশ এই সমস্যা। তাই আজকে তাদের সবার উদ্দেশে জানাবো যে পা ফাটা থেকে মুক্তির উপায়, হাত ফাটা দূর করার উপায়, হাত পা ফাটা দূর করার উপায়। 

পা ফাটার কারণ কি ?

১. ডায়াবেটিস বা থাইরয়েডে সমস্যায় 

২. জলের স্বল্পতা বা অভাব 

৩. নিয়মিত ময়েশ্চারাইজিং না করা

৪. দীর্ঘ সময় কোন শক্ত স্থানে দাঁড়িয়ে থাকলে পা ফেটে যেতে পারে

৫. অনেক গরম জল দিয়ে স্নান করা

৬. ঠান্ডা আবহাওয়া

৭. বয়স বৃদ্ধির কারণে

৮. কারো পা প্রাকৃতিক ভাবে শুষ্ক হয় তবে ফেটে যেতে পারে ইত্যাদি।

মোমবাতির মোম

মোমবাতির মোমের সঙ্গে সরিষার তেল মিশিয়ে তা ফাটা স্থানে লাগিয়ে সারা রাত রেখে দিন। এতে পা ফাটা সেরে যাবে।

গ্লিসারিন ও গোলাপজল

গোলাপজলের সঙ্গে কিছুটা গ্লিসারিন মিশান। এই মিশ্রণ পায়ের গোড়ালিতে লাগিয়ে সারা রাত রেখে দিন। এতে পা ফাটা ও ব্যথা কমবে।

নারকেল তেল

পা ফাটা রোধ করার সবচেয়ে সহজ এবং সস্তা উপায় হল নারকেল তেল। নারকেল তেল পা ময়েশ্চারাইজ করে ব্যাকটেরিয়া, ফাঙ্গাস দূর করে থাকে। ঘুমাতে যাওয়ার আগে কুসুম গরম পানিতে পা ভিজিয়ে নিন। তারপর পা ঘষে নিন। তারপর পা মুছে নারকেল তেল লাগিয়ে নিন।এভাবে সারা রাত থাকুন। পরের দিন সকালে পা ধুয়ে ফেলুন। এটি নিয়মিত করুন যত দিন পর্যন্ত না পা ফাটা সম্পূর্ণ ভাল হচ্ছে। আপনি চাইলে অলিভ অয়েলও ব্যবহার করতে পারেন।

তিলের তেল

পা ফাটা সমস্যা সমাধানে তিলের তেল দারুণ কার্যকর। পায়ে তিলের তেল মাখলে পা ফাটা দূর হয়।

ভ্যাসলিন ও লেবুর রস

ভ্যাসলিনের সঙ্গে কয়েক ফোঁটা লেবুর রস মিশিয়ে তা ফাটা স্থানে মালিশ করুন। এতে ওই মিশ্রণ সেখানে শোষণ হয় বলে পা ফাটা দ্রুত সেরে যায়।

মধু ও জল 

এক কাপ মধু আধা বালতি গরম পানিতে মিশিয়ে এতে ১৫ থেকে ২০ মিনিট পা ভিজিয়ে রাখুন। এতে পা ফাটা দূর হবে। তথ্যসূত্র: জিনিউজ।

পেট্রোলিয়াম জেলি এবং লেবুর রস

পেট্রোলিয়াম জেলি আপনার শুষ্ক ত্বককে ময়েশ্চারাইজ করে থাকে। এটি ফাটা দাগ সমান করে থাকে। এর সাথে পায়ের পাতা নরম করে তোলে।

১ চা চামচ পেট্রোলিয়াম জেলি, ১টি লেবুর রস মিশিয়ে নিন। প্রথমে পা অল্প গরম জলে ১০ মিনিট ভিজিয়ে রাখুন। তারপর পা শুকিয়ে নিন। জেলি, লেবুর রসের মিশ্রণটি পায়ে লাগান। হালকা হাতে ম্যাসাজ করুন। এভাবে সারা রাত রাখুন। সকালে ঘুম থেকে উঠে পা ধুয়ে ফেলুন। ভাল ফল পেতে নিয়মিত ব্যবহার করুন।

শেষ কথা 

হাত পা ফাটা নিয়ে ওতো বেশি করে ভাবার নেই। ওপরের লেখা গুলো ভালো করে আজ থেকেই শুরু করেদিন। তাড়াতাড়ি সেরে উঠবে। ভালো থাকবেন।



Comments are closed.