চর্মরোগ থেকে মুক্তির উপায় – Home Remedy for Skin Disease

আগেই বলে নিচ্ছি কেননা আপনারা পরে ভুলে যান। বাকি বন্ধুদের সাহায্যের উদ্দেশে লাইক আর শেয়ারটা  মনে করে করে দেবেন। শুরু করছি আজকের বিষয় –


নমস্কার বন্ধুরা আমি শান্তনু আপনাদের সবাইকে আমার এই chalokolkata.com এ স্বাগতম।   আশা করি সবাই আপনারা ভালোই আছেন আর  সুস্থ আছেন। আজ আমি  আপনাদের সবার জন্য একটা দারুন টপিক নিয়ে কথা বলবো যেটা আমাদের সবার না হলেও অনেকেরই হয়ে থাকে আর গরম আর বর্ষা কালে তো সব থেকে বেশি হয়ে থাকে  সেটা হল চর্মরোগ। আমরা আজকে জন্য যে এই চর্মরোগ এর থেকে কিভাবে মুক্তি পাওয়া যায়। আমাদের এই বিষয়ে সকলের একটু ভালো করে জেনে নিতে হবে।  আমরা আরও জন্য যে – চুলকানি থেকে মুক্তি পাওয়ার উপায়, চুলকানি দূর করার ক্রিম, চুলকানি দূর করার ঔষধ, চুলকানি দূর করার সহজ উপায় জেনে নিন, দাউদের ক্রিম, চুলকানি ঔষধের নাম কি, চুলকানি দূর করার ঘরোয়া উপায় চর্মরোগের ঔষধ ও ইত্যাদি ইত্যাদি। তাহলে আর কথা না বাড়িয়ে শুরু করা যাক –

বন্ধুরা এখন অনেকটাই গরম পড়তে শুরু করেছে আর বৃষ্টির কোনো নাম গন্ধ নেই। তাই এই আবহাওয়ায় ত্বকে দেখা দেয় নানা সমস্যা। এছাড়া খাবারে অ্যালার্জি, নানা ধরনের রাসায়নিকের সংস্পর্শে আসা, পোকা মাকড়ের কামড়, চুলকানি, কুষ্ঠ রোগ ইত্যাদি নানা কারণে চর্মরোগ হতে পারে। আমাদের চর্মরোগ বা ত্বকের সমস্যা হলে চিকিৎসা তো করতেই হবে, তবে সাধারণ কিছু বিষয় খেয়াল রাখলে এবং সহজ কিছু অভ্যাস গড়ে তোলা গেলে চর্মরোগ থেকে আগেই মুক্তি পাওয়া সম্ভব। আমরা জেনে নেবো কি সেই উপায়গুলো –

চুলকানি দূর করার সহজ উপায় জেনে নিন

ঘৃতকুমারী বা এলোভেরা 

ঘৃতকুমারীর একাধিক গুণ রয়েছে। ত্বকের যেকোনো সমস্যায় এর রস লাগান। সমস্যা থেকে মুক্তি পাবেন।

নিম

বন্ধুরা আমরা অনেকেই জানি যে নিমে রয়েছে এমন উপাদান যা যেকোনো জ্বালাময়ী ভাব কমিয়ে দিতে সক্ষম। বিশেষ করে চুলকানি বা ত্বকের লাল ছোপ ইত্যাদি কমাতে নিমের পাতা বিশেষ কাজ করে।

ফল ও সবজি

ত্বক ভালো রাখতে প্রচুর ফল ও সবজি খাওয়ার অভ্যাস তৈরি করা উচিত।

জল 

প্রচুর পরিমাণে বিশুদ্ধ জল পান করতে হবে। এতে শরীরের ভিতর থেকে চামড়ার আর্দ্রতা বজায় থাকবে।

অলিভ অয়েল

শুষ্ক ত্বকে সমস্যা অনেক বেশি হয়। অলিভ অয়েলে থাকা ভিটামিনত্বকে মিশে গিয়ে আর্দ্রতা বজায় রাখে। ফলে নিয়মিত মাখলে ত্বক ভালো থাকে।

প্রসাধনী

ত্বকে যে কোনো ধরনের প্রসাধনসামগ্রী ব্যবহারের আগে সচেতন হওয়া জরুরি। রাসায়নিক পদার্থসমৃদ্ধ প্রসাধনী এবং অ্যালার্জি তৈরি করে এমন উপাদান সম্পর্কে সচেতন হতে হবে। প্যারাবিন ও সোডিয়াম লরাইল সালফেট আছে এমন শ্যাম্পু ও সাবান এড়িয়ে চলা উচিত।

তুলসী

তুলসীর হাজারো গুণ রয়েছে। নানা ধরনের ক্ষত, লাল ছোপ, পোড়া, চুলকানিসহ ত্বকের যেকোনো সমস্যায় তুলসী পাতা বেটে রস লাগালে সঙ্গে সঙ্গে উপকার পাওয়া যায়।

ওমেগা ফ্যাটি এসিড

ত্বক ভালো রাখতে ওমেগা ফ্যাটি এসিড খুবই জরুরি একটি উপাদান। তাই খাদ্য তালিকায় প্রয়োজনীয় ওমেগা ফ্যাটি এসিডযুক্ত করার চেষ্টা করতে হবে।

বেকিং সোডা

বেকিং সোডা দিয়েও ত্বকের নানা সমস্যার সমাধান সম্ভব। আক্রান্ত জায়গায় বেকিং সোডা লাগান। সঙ্গে সঙ্গে জ্বালাপোড়া ভাব ও চুলকানি কমে যাবে।

সূর্যের আলো

প্রতিদিন অন্তত ১৫ মিনিট সূর্যের আলোতে থাকার চেষ্টা করুন।

মেডিটেশন

সারাদিনের কর্মব্যস্ততার ফাঁকে কিছুটা সময় নিজের জন্য রাখা উচিত। চাইলে মেডিটেশন বা যোগ ব্যায়াম করা যেতে পারে। কারণ মেডিটেইশন ও যোগ ব্যায়াম পুরো শরীরের স্বাস্থ্য ভালো রাখতে সাহায্য করে।

শেষ কথা

বিভিন্ন কারণে ত্বকে চুলকানি বা চর্মরোগ হতে পারে। তবে কিছুটা সচেতন হলে এবং পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতা বজায় রাখলে চর্মরোগ থেকে কিছুটা হলেও রেহাই পাওয়া যায়।  বাকি বন্ধুদের সাহায্যের উদ্দেশে লাইক আর শেয়ারটা  মনে করে করে দেবেন। ধন্যবাদ। 



Comments are closed.