ক্যালসিয়াম যুক্ত খাবার কি কি – Benefits, Calcium Foods

নমস্কার বন্ধুরা আমি শান্তনু আপনাদের সবাইকে অনেক অনেক ভালোবাসা ও স্বাগতম আমার এই পেজ এ। আশা করবো আমার প্রত্যেক লেখা আপনাদের অনেকটাই উপকার করতে সাহায্য করবে ও আশা করবো ভালো লাগবে আপনাদের। বন্ধুরা আমাদের ক্যালসিয়ামেরে অভাবে অনেক ক্ষয় ক্ষতি হয়ে যায় শরীরের। ভালো ভালো ক্যালসিয়াম যুক্ত খাবার দরকার আমাদের সকলের। আমরা দেখে নেবো সরাসরি ক্যালসিয়াম যুক্তিও সেই সব খাবারের প্রতি। প্রতিদিন আমরা শরীরের বিভিন্ন চাহিদা পূরণ করতে বিভিন্ন ধরনের খাবার খেয়ে থাকি। এই খাবারগুলো আমাদের দেহে ভিটামিন, মিনারেল, প্রোটিন সরবরাহ করে থাকে। এছাড়া আরও অনেক ধরনের উপাদানই আমাদের দেহের জন্য বেশ প্রয়োজনীয় তার মধ্যে ক্যালসিয়াম অন্যতম। কেননা ক্যালসিয়াম আমাদের দেহের একটি গুরুত্বপূর্ণ কাজ করে থাকে সেটি হল দেহের হাড় মজবুত করে থাকে। আসুন এমনই কিছু ক্যালসিয়াম সমৃদ্ধ খাবার সম্পর্কে জেনে নিই যেগুলো আমাদের দেহের হাড় মজবুতে সহায়তা করে থাকে।


দুধ না খেলে হবে না ভালো ছেলে . কারণ, দুধ মানেই ক্যালসিয়াম। আর সবাই জানেন ক্যালসিয়াম আমাদের শরীরের জন্য কত প্রয়োজনীয়। এই উপাদান হাড়, দাঁত শক্ত করতে সাহায্য করে। শুধু তাই নয়, এই মিনারেল পেশী মজবুত করতে, ব্লাড প্রেসার নিয়ন্ত্রণে আর ত্বককে উজ্জ্বল করতেও যথেষ্ট সাহায্য করে। সুস্থ থাকতে তাই একজন পুরুষের দিনে হাজার মিলিগ্রাম আর মহিলার ১,২০০ মিলিগ্রাম ক্যালসিয়াম নেওয়া উচিত। এদিকে আজকাল ল্যাকটোজ থেকে অ্যালার্জি হচ্ছে ছোট থেকে বড় অনেকেরই। অনেকেই দুধ খেতেও পছন্দ করেন না। তাই দুধের বদলে অন্য কী কী খাবার থেকে ক্যালসিয়াম পেতে পারেন জেনে নিন

যে খাবারে ক্যালসিয়াম থাকে – আয়রন ও ক্যালসিয়াম যুক্ত খাবার

1. বিনস : রাজমা, রেড বিনস সহ যে কোনও ধরণের বিন জাতীয় সবজি খান। এতে প্রচুর পরিমাণে ক্যালসিয়াম ও প্রোটিন থাকে।

2. ডুমুর : এই ফলে যেমন আয়রন থাকে প্রচুর তেমনি থাকে ক্যালসিয়াম। এক কাপ ডুমুরে প্রায় ২৪২ গ্রাম ক্যালসিয়াম মেলে। একই সঙ্গে ফাইবার, পটাশিয়াম, ম্যাগনেসিয়াম থাকায় এটি হৃদস্পন্দন স্বাভাবিক রাখে। পেশী মজবুত করে।

3. মাছ : প্রধানত স্যামন ও সার্ডিন জাতীয় মাছে অর্থাত্‍ সামুদ্রিক মাছে প্রচুর ক্যালসিয়াম থাকে। বিশেষ করে একটুকরো সার্ডিন মাছে প্রায় ৫৬৯ মিগ্রা ক্যালসিয়াম থাকে। এছাড়া, কাঁটা সমেত যে কোনও মাছেই এই মিনারেলস মিলবে।

4. আমন্ড : ক্যালসিয়ামের পাশাপাশি এতে প্রচুর প্রোটিনও থাকে। এক কাপ আমন্ড-এ ৪৫৭ গ্রাম এই খনিজটি থাকে। দাঁতহাড় শক্ত করার সঙ্গে হৃদরোগ কমায়। স্মৃতিশক্তি বাড়ায়। প্রতিদিন এক গ্লাস করে আমন্ড দুধ তাই আপনার জন্য খুবই উপকারী। এছাড়া কেউ চাইলে রোজ একমুঠো আমন্ড এমনি খেতে পারেন। এতেও উপকার পাবেন।

5. ওটমিল : ব্রেকফাস্টে ওটমিল খান। খুব বেশি পরিমাণে না হলেও ওটমিলেও ক্যালসিয়াম থাকে।

6. কমলালেবু : ভিটামিন সি আর ক্যালসিয়ামের দুর্দান্ত কম্বিনেশন কমলালেবু। একটি কমলালেবু মানেই শরীরে ৬০ মিগ্রা ক্যালসিয়াম। এতেও ভিটামিন ডি প্রচুর পাবেন।

7. সোয়া মিল্ক : ল্যাকটোজ যাঁদের সহ্য হয় না, তাঁদের জন্য সোয়া মিল্ক খুবই উপকারী। এমনকী গরুর দুধের থেকেও বেশি পুষ্টিগুণ রয়েছে এতে। এক কাপ দুধে প্রায় ৬০ মিগ্রা ক্যালসিয়াম থাকে। আর থাকে ভিটামিন ডি। যা ক্যালসিয়ামকে শরীরের উপকারী যৌগ হিসেবে তৈরি করতে সাহায্য করে।

8. সবুজ শাক-সব্জি : বেশিরভাগ সবুজ শাক-সবজিতেই রয়েছে প্রচুর পরিমাণে ক্যালসিয়াম। এক আটি শাকে থাকে ৩৩৬ মিগ্রা খনিজ। তাই পাতে পড়ুক পালং শাক, ব্রক্কলি, বাঁধাকপি, সেলারি।

9. সিসমে বীজ : প্রতি এক টেবিল চামচে ক্যালমিয়ামে থাকে ৮৮ মিলিগ্রাম ক্যালসিয়াম ।

10. ভিটামিন ডি: ভিটামিন ডি-এর অভাবে ক্যালসিয়াম কাজ করে না আমাদের শরীরে । তাই ভিটামিন ডি সমৃদ্ধ খাবার খাওয়া এবং সূর্যালোকে বের হওয়া খুব দরকার ।

11. মটরশুটি : মটরশুটিতেও প্রচুর পরিমাণে ক্যালসিয়াম রয়েছে যেগুল হাড় মজবুত করে। এক্ষেত্রে ক্যালসিয়াম বৃদ্ধির জন্য আপনি বিভিন্ন জাতের মটরশুটি খেতে পারেন।

12. বিভিন্ন ঔষধি এবং মসলা : বিভিন্ন ধরনের ঔষধি অর্থাৎ তুলসী পাতা, পুদিনা পাতা, দারুচিনি এবং মসলা জাতীয় খাবার যেমন রসুন ইত্যাদিতে প্রচুর পরিমাণে ক্যালসিয়াম রয়েছে যা শরীরের বিভিন্ন হাড় মজবুত করে থাকে।



Comments are closed.