ত্বকে অলিভ অয়েলের উপকারিতা – Olive Oil Benefits For Skin

খাবারে অলিভ অয়েলের   বা অলিভ অয়েল মুখের যত্নে ব্যবহার যে কতটা উপকারী তা জানেনা এমন কেউ কি আছে? এটি একটি সুপরিচিত প্রাকৃতিক পণ্য যার স্বাস্থ্য এবং ত্বকের জন্য উপকারী অসাধারণ গুণাবলী আছে।

উচ্চ পুষ্টিগুন সমৃদ্ধ এই তেলটি পাঁচ হাজার বছর আগে মিশরীয়দের দ্বারা আবিষ্কৃত হয়েছিল বলে মনে করা হয়। খাদ্যে ভেজিটেবল তেল অথবা অন্যান্য অস্বাস্থ্যকর তেলের পরিবর্তে অলিভ অয়েল ব্যবহার করার জন্য বিশ্ব জুড়ে প্রত্যেক পুষ্টিবিদ পরামর্শ দিয়ে থাকেন। আপনি কি জানেন অলিভ অয়েলে ত্বকের উপকারের জন্য অসাধারণ পুষ্টিগুণ আছে? এটি আপনাকে প্রাকৃতিকভাবে উজ্জ্বল ত্বক পেতে সাহায্য করে।

অলিভ অয়েলের উপকারিতা

অলিভ অয়েল সবচেয়ে নিকটতম তেল যা আমাদের ত্বকের প্রাকৃতিক তেলের রাসায়নিক কাঠামোর সাথে মিলে যায়। উজ্জ্বল এবং স্বাস্থ্যকর ত্বক প্রদান করা ছাড়াও, এটি ত্বকের অন্যান্য সমস্যা যেমন ব্ল্যাকহেডস এবং হোয়াইট হেডস ইত্যাদির সাথে যুদ্ধ করে। অলিভ অয়েলের সবচেয়ে ভালো উপকারিতাগুলো নিম্নে দেওয়া হলোঃ

1. প্রচুর অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট (Antioxidant) সমৃদ্ধ।

2. খুব ভালো ময়েশ্চারাইজার ।

3. ব্ল্যাকহেডস এবং হোয়াইট হেডস নিরাময়ক।

4. ত্বকে তারুণ্য ফিরিয়ে আনে।

5. স্কিন সেলস রিপেয়ার করে।

6. প্রাকৃতিকভাবে জীবাণু প্রতিরোধক।

7. প্রদাহ কমায়।

অলিভ অয়েল মুখে দিলে কি হয়

আমাদের ত্বকের অলিভ অয়েল মুখের যত্নেজন্য অলিভ অয়েলের উপকারিতাগুলো অবিশ্বাস্য। উজ্জ্বলতার জন্য মুখে অলিভ অয়েল না লাগানোটা কি এখন মোটেও যুক্তিসংগত মনে হচ্ছে? যাই হোক, আপনি রূপচর্চার জন্য অবশ্যই “এক্সট্রা ভার্জিন” অলিভ অয়েল ব্যবহার করবেন। এক্সট্রা ভার্জিন অলিভ অয়েল ব্যবহার করার জন্য পরামর্শ দেওয়া হয় কারণ এটি তেলের পরিশোধিত রূপ নয়; যার ফলে, এর মধ্যে সকল পুষ্টিগুণ গুলো সংরক্ষিত থাকে।

উজ্জ্বল ত্বক পাওয়ার উপায়

উজ্জ্বল ত্বক পাওয়ার জন্য অলিভ অয়েল ব্যবহারের অনেকগুলো উপায় আছে। সর্বাধিক উপকারিতা আছে এমন উপায়গুলো নিম্নে তুলে ধরা হলোঃ

উজ্জ্বল ত্বকঅলিভ অয়েলের রূপচর্চা 

1. এক্সট্রা ভার্জিন অলিভ অয়েল (extra virgin olive oil)

2. অলিভ অয়েল এবং লেবুর রস

3. অলিভ অয়েল এবং মধু

4. অলিভ অয়েল এবং হলুদ

5. অলিভ অয়েল এবং ক্যাসটোর অয়েল

6. অলিভ অয়েল এবং ভিনেগার

ত্বকের জন্য অলিভ অয়েল ব্যবহারের কার্যকরী উপায়

1. এক্সট্রা ভার্জিন অলিভ অয়েল

উপকরণ

  • 1 টেবিল চামচ এক্সট্রা ভার্জিন অলিভ অয়েল (extra virgin olive oil)
  • সুতার রুমাল
  • গরম জল 

প্রক্রিয়া 

  • আপনার হাতের আঙ্গুল দিয়ে আপনার মুখের সব জায়গায় তেলটি ম্যাসাজ করুন। আপনার নাক, গাল এবং কপালে দৃঢ়ভাবে ঘষার চেষ্টা করবেন।
  • এখন, রুমালটি গরম পানিতে চুবিয়ে নিন। মুখে রুমালটি চাপ দিয়ে ধরে রাখুন এবং রুমালটি রুমের স্বাভাবিক তাপমাত্রায় না আসা পর্যন্ত মুখেই ধরে রাখুন।
  • রুমাল সরিয়ে নিন এবং আবার গরম পানি দিয়ে রুমাল নিঙরে নিন। এইবার, রুমালটি চাপ দিয়ে ধরে রাখার বদলে আলতোভাবে পুরো মুখে ঘষার চেষ্টা করুন। এতে অলিভ অয়েলের উপরের স্তরটি মুছে যাবে।
  • একটি পেপার টাওয়েল দিয়ে আপনার মুখ মুছে নিন।

এটি কতবার করবেন?

প্রতিদিন সকালে এবং রাতে এর পুনরাবৃত্তি করুন। এক সপ্তাহের মধ্যে আপনি ফলাফল দেখতে পাবেন।

কিভাবে কাজ করে?

অলিভ অয়েল ব্যবহারের উপকারিতা উপরে বিস্তারিতভাবে বলা হয়েছে। যদি আপনার ত্বক শুষ্ক হয়, সকল অমসৃণ এবং শুষ্ক প্যাচেস দূর করবে এবং আপনার ত্বক উজ্জ্বল এবং পুনরায় তারুণ্যময় করে তুলবে। তৈলাক্ত ত্বক হলে, আপনার ত্বকে অতিরিক্ত তেলের উৎপাদন নিয়ন্ত্রণে চলে আসবে এবং আপনার লোমকূপগুলো পরিষ্কার এবং ধূলাবালি মুক্ত হবে।

সতর্কতা

গরম পানির তাপমাত্রা অবশ্যই সহনীয় পর্যায়ে হতে হবে।

2. অলিভ অয়েল এবং লেবুর রস

উপকরণ

  • 1 টেবিল চামচ অলিভ অয়েল
  • 1 টেবিল চামচ লেবুর রস

প্রক্রিয়া

  • অলিভ অয়েলে লেবুর রস ভালোভাবে মিশান।
  • আপনার পুরো মুখে এটি লাগান এবং ১-২ মিনিট মুখে ম্যাসাজ করুন।
  • ৩০ মিনিট মুখে রেখে দিন এবং গরম পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন।
  • সবশেষে আরেকবার ঠান্ডা পানি দিয়ে মুখ ধুয়ে নিন।

এটি কতবার করবেন?

প্রতি সপ্তাহে ২-৩ বার করবেন।

এটা কিভাবে কাজ করে?

লেবুর রস লোমকূপে জমে থাকা ধুলাবালি পরিষ্কার করে এবং আপনার গায়ের রং উজ্জ্বল করে তুলে। এটি খুব ভালো এ্যাস্ট্রিনজেন্ট এবং এ্যান্টিসেপ্টিক।

3. অলিভ অয়েল এবং মধু

উপকরণ

  • 1 টেবিল চামচ অলিভ অয়েল
  • 1 চা চামচ মধু
  • 1টি ডিমের কুসুম

প্রক্রিয়া

  • একটি পাত্রে অলিভ অয়েল, মধু এবং ডিমের কুসুম নিন। ভালোভাবে মিশিয়ে নিন।
  • আপনার মুখে মিশ্রণটি লাগান এবং 15 মিনিটের জন্য রেখে দিন।
  • এখন গরম পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন।

এটি কতবার করবেন?

ভালো ফলাফলের জন্য সপ্তাহে দুইবার ব্যবহার করুন।

এটা কিভাবে কাজ করেন?

এই ফেইস মাস্কটি ত্বকের স্থিতিস্থাপকতা, মসৃণতা, আদ্রতা এবং প্রাকৃতিক উজ্জ্বলতা বজায় রাখতে সাহায্য করে। মধু একটি হিউমেকট্যান্ট এবং এছাড়াও এ্যান্টিঅক্সিডেন্ট বহন করে যা নিষ্প্রাণ ত্বক পুনরায় সতেজ করে তুলে। ডিমের কুসুমে পুষ্টিগুণ আছে যা ত্বক পুনর্গঠিত করে এবং ত্বককে টান টান করে এবং ত্বকে খুব সুন্দর উজ্জ্বলতা প্রদান করে।

4. ত্বকের জন্য অলিভ অয়েল এবং হলুদ

উপকরণ

  • 1টেবিল চামচ অলিভ অয়েল
  • 1/2 চা চামচ হলুদ গুঁড়া
  • 2 টেবিল চামচ দই

প্রক্রিয়া

  • সব উপকরণগুলো একসাথে মিশান এবং আপনার মুখে লাগান।
  • 10-15 মিনিট ফেইস প্যাকটি আপনার মুখে রাখুন।
  • পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। আপনি মুখ থেকে হলুদের দাগ দূর করার জন্য একটি ফেসিয়াল ক্লিনজার ব্যবহার করতে পারবেন।

এটি কতবার করবেন?

সপ্তাহে দুইবার ব্যবহার করবেন।

এটা কিভাবে কাজ করে?

হলুদ বেশিরভাগ সময় হারবাল ফেইস প্যাকগুলোতে শুধুমাত্র ত্বকের সমস্যা দূর করার জন্য ব্যবহার হয় না, ত্বকে প্রাকৃতিকভাবে উজ্জ্বলতা বাড়াতেও ব্যবহার হয়। এই প্যাকের দই ত্বককে কন্ডিশন করে এবং এর ল্যাকটিক এসিড ত্বকের উজ্জ্বলতা বাড়ায়।

5. অলিভ অয়েল এবং ক্যাসটোর অয়েল

উপকরণ

  • 1 চা চামচ অলিভ অয়েল
  • 1 চা চামচ ক্যাসটোর অয়েল
  • কয়েক ফোঁটা টি ট্রি অয়েল অথবা ল্যাভেন্ডার অয়েল (না দিলেও চলবে)
  • ওয়াশ ক্লথ
  • গরম পানি

প্রক্রিয়া

  • সব তেল একসাথে মিশিয়ে নিন এবং আপনার মুখে ম্যাসাজ করুন। আলতো করে বৃত্তাকারভাবে ম্যাসাজ করুন।
  • 2-3 মিনিট ধরে ম্যাসাজ করতে থাকুন।
  • পরবর্তী10  মিনিট তেল মুখে ব্লেন্ড হয়ে যেতে দিন এবং একটি ওয়াশ ক্লথ গরম পানিতে ভিজিয়ে নিয়ে মুখের তেল এটা দিয়ে মুছে ফেলুন।

কতবার করবেন?

সপ্তাহে 3-4 বার এটা করবেন।

এটা কিভাবে কাজ করে?

ত্বক ম্যাসাজ করার জন্য তেলের ব্যবহার করলে আপনার ত্বকের প্রাকৃতিক তেলের উৎপাদন পুনরায় স্বাভাবিক স্তরে চলে আসে। আপনার ত্বকে পুষ্টি জোগায় এবং আপনার ত্বককে প্রতিদিন আরো নরম, কোমল এবং উজ্জ্বল করে তুলবে।

6. অলিভ অয়েল এবং ভিনেগার

উপকরণ

  • 1/2 কাপ অলিভ অয়েল
  • 1/4 কাপ ভিনেগার
  • 1/4 কাপ পানি
  • একটি বোতল (সংরক্ষণের জন্য)

প্রক্রিয়া

  • সব উপকরণ বোতলে ঢালুন এবং ভালোভাবে ঝাঁকিয়ে নিন।
  • এই মিশ্রণটির কয়েক ফোঁটা আপনার মুখে লাগান। পুরো মুখে বৃত্তাকারভাবে ম্যাসাজ করে লাগিয়ে নিন।
  • সারারাত মুখে রেখে দিন।

কতবার লাগাবেন?

প্রতিদিন রাতে ঘুমাতে যাওয়ার আগে এটি মুখে লাগিয়ে ঘুমাবেন।

এটা কিভাবে কাজ করে?

যখন অলিভ অয়েল ত্বকে পুষ্টি জোগায় তখন ভিনেগার ত্বককে টোন করে এবং এর কোমল এসিডিক বৈশিষ্ট্যের মাধ্যমে ত্বকের উজ্জ্বলতা বাড়ায়।

প্রাকৃতিকভাবে উজ্জ্বলতা পাওয়ার জন্য অলিভ অয়েল দিয়ে রূপচর্চার উপায়গুলো স্পষ্টভাবে খুবই উপকারি। তাছাড়া, আমরা সবাই ক্যামিকাল দেওয়া কসমেটিকস এর পেছনে বেশি ব্যয় না করেই উজ্জ্বল ত্বক পেতে চাই। উপরে বর্ণিত উপায়গুলোর মাধ্যমে অলিভ অয়েল ত্বকের উজ্জ্বলতা বাড়াত সাহায্য করবে। এবং আমরা সবাই জানি প্রাকৃতিক উপায় সবসময় সুন্দর এবং সুরক্ষিত।

Comments are closed.