Gatidhara Project in Bengali – গতিধারা প্রকল্প

0

বন্ধুরা কেমন আছো আশা করি টিউমার সকলেই ভালো আছো। তা বন্ধুরা আজ আমরা যেটা নাইকি কথা বলবো বা আলোচনা করবো সেটা হল এমন একটি পশ্চিমবঙ্গ সরকারের প্রকল্প যা আমাদের বাংলার বুকে সবসময় আমাদের সবার চোখে পরে আর সেটা হলো গতিধারা প্রকল্প। বন্ধুরা আমরা বর্তমানে অনেকেই জানি বা অনেকেই জানি না যে এই প্রকল্পের দ্বারা কত্ত মানুষ ভালো ভাবে রোজগার করে তাদের জীবন যাপন সুখে সাচ্ছন্দে কাটাচ্ছে। এই প্রকল্প ঠিক আগস্ট ২০১৪ তে, পশ্চিমবঙ্গ সরকার গতিধারা প্রকল্প চালু করেছে। এই পরিকল্পের রূপরেখা এঁকেছেন অর্থমন্ত্রী ফেব্রুয়ারি-র বাজেটে। যে সব পরিবারের বার্ষিক আয় ২৫০০০ টাকা বা তার কম, এই পরিকল্পের থেকে সাহায্য পেতে পারে। পরিবহন বিভাগ আবেদনকারীদের সাক্ষাতকার নেবে এবং যোগ্য প্রার্থীদের একটি তালিকা তৈরি করবে। শ্রম বিভাগ অর্থ দেবে, কিন্তু পরিকল্পটি কার্যকর করবে অর্থ বিভাগ।এই পরিকল্পের উদ্দেশ্য পরিবহন পরিষেবার মাধ্যমে রাজ্যের নাগরিক ও গ্রামীণ এলাকায় স্বনিযুক্তি সৃষ্টি করা। এখন আমরা একটু জেনে নেবো যে গতিধারা প্রকল্প কি ?

গতিধারা (GATIDHARA) প্রকল্প কি?

গতিধারা (GatiDhara) প্রকল্প অধীনে যোগ্য আবেদনকারীদের একটি ঋণ দেওয়া হবে , গাড়ি ক্রয় করার জন্য 10,00,000টাকা। এবং সেই ঋনের ওপর 30% বা 1,00,000 টাকা শুধুমাত্র আবেদনকারীকে ফেরত দিওয়া হবে ভর্তুকি হিসাবে। 9,00,000 টাকা এবং ভর্তুকি বিভিন্ন ব্যাংকের মাধ্যমে সরকার কর্তৃক সরবরাহ করা হবে। ২০ থেকে 45 বছর বয়সী বেকার লোকেরা ঋণে জন্য আবেদন করতে পারবেন। এই পরিকল্পনার উদ্দেশ্য পরিবহন পরিষেবা মাধ্যমে কর্মসংস্থান বৃদ্ধি।

গতিধারা (GATIDHARA) প্রকল্প কি ভাবে পাবেন 

যেহেতু আমি নিজে একজন গতিধারার প্রকল্পের আওতায় পড়েছি সেহেতু ব্যাপারটা আরও ভালো ভাবে জানি যে এই প্রকল্পের জন্য আপনার এম্প্লয় এক্সচেঞ্জ এর কার্ড করতে হবে এবং সম্পূর্ণ ব্যাপারটা আপনি এক্সচেঞ্জ এর অফিস এর থেকে স্টেপ বই স্টেপ জেনে নিতে পারবেন। তবে আপনাকে আপনার এলাকার নিকটতম এক্সচেঞ্জ অফিস এ গিয়ে যোগাযোগ করতে হবে ,আর এই কার্ড করতে গেলে আপনাকে অষ্টম শ্রেণী বা দশম শ্রেণীর মার্কশিট আর পরিচয় প্রমান পত্র ইত্যাদি নিয়ে এক্সচেঞ্জ এর অফিস এ গিয়ে কার্ড বানাতে হবে আর যদি কারোর আগের থেকেই কার্ড করা থাকে তাহলে রিনু করতে হবে যদি রিনু করানো না থাকে। বাস বাদবাকি ওখানেই সব কথা বলে নিয়ে জেনে নিয়ে ফর্ম ফিলাপ করতে হবে। সেই ফর্ম এ একটা আপনার আইডি ও পাসওয়ার্ড থাকবে। আপনাকে ওখান থেকে একটা ফর্ম বের করে দেওয়া হবে যেটা সঙ্গে নিয়ে আপনি যেকোনো গাড়ির শোরুম এ গিয়ে দেখবেন এবং গাড়ি কেনার ব্যাপারে বিওস্তারিত ভাবে কথা বলতে পারবেন। 

গতিধারা (GATIDHARA) প্রকল্পটির লক্ষ্য ?

গতিধারা প্রকল্পের মূল উদ্দেশ্য হচ্ছে , আর্থিক সহায়তা প্রদান করা , vehicle এর ছোট ব্যবসা বানিজ্য শুরু করার জন্য (ট্যাক্সি, বাস, ছোট ট্রাক, অটো রিকশা, ই রিকশা ইত্যাদি)।

গতিধারা /Gatidhara প্রকল্পটির উপকারিতা

  • The GatiDhara scheme provides benefits in West Bengal state to buy small business vehicle to unemployed persons aged between 20 and 45
  • Under this scheme Loan is provided of amount Rs. 10,00,000 through all the Nationalize Banks, Co-operative Banks, Gramin Banks
  • 30% or upto Rs. 1,00,000 subsidy provided over sanctioned loan while repaying the loan
  • Easy availability of loan
  • No restriction of loan repayment
  • 5 to 7 years are given to repayment of loan as a moratorium period

 Documents Required (তথ্য প্রমাণ)

  • Driving license
  • Income certificate from respective authority upto
  • Domicile certificate
  • Aadhar card
  • Residence proof
  • Identity proof
  • Caste certificate
  • Birth certificate age proof
  • Unemployment certificate
  • Project report
  • Affidavit as per mention (Format of affidavit mentioned below)
  • Passport size photograph

গতিধারা প্রকল্পে আরও গাড়ি নামানোর সুযোগ দিচ্ছে রাজ্য

গতিধারা প্রকল্পে বেকার যুবক-যুবতীদের গাড়ি নামানোর আরও বেশী করে সুযোগ করে দিচ্ছে রাজ্য সরকার। আরও ২০০০ বেকার যুবক-যুবতী এই স্কিমে গাড়ি নামানোর অনুমোদনপত্র পেলেন। পরিবহণমন্ত্রী বলেন, “চেষ্টা চালানো হচ্ছে ডিসেম্বর মাসের মধ্যে ১০ হাজার বেকার যুবক যুবতীকে এই স্কিমের আওতায় স্বনির্ভর করার। আগে আবেদনকারীদের হাতে চেক দেওয়া হত। কিন্তু, এখন সরাসরি ডিলারদের কাছে আবেদনকারীর নামে টাকা চলে যাচ্ছে। এর ফলে বেকার যুবক-যুবতীরা যেমন স্বনির্ভর হচ্ছেন, তেমনই রাস্তায় গাড়ির সংখ্যাও বাড়ছে।” সম্প্রতি একটি অ্যাপের মাধ্যমে হলুদ ও নীল-সাদা ট্যাক্সি পরিষেবার উদ্বোধন করেন পরিবহণমন্ত্রী। এই অ্যাপের মাধ্যমে বুক করা যাবে সাধারন ট্যাক্সি। পাশাপাশি টাইগার অ্যাপেও হলুদ ট্যাক্সি বুক করার সুবিধা বৃদ্ধি করা হল। এই অ্যাপ চালু হওয়ার সাধারণ যাত্রীদের হলুদ ট্যাক্সি পেতে অনেক সুবিধা হবে।

গতিধারা প্রকল্পের পারমিট এখন মিলবে অনলাইনে

অভিনব অনলাইন পরিষেবার চালু করল রাজ্য পরিবহণ দফতর। এই পরিষেবায় গতিধারা প্রকল্পের অন্তর্গত বিলাসবহুল গাড়ির পারমিট পেতে আবেদন করতে পারবে অনলাইনে। এই পরিষেবার চালু হওয়ার জেরে আবেদন জমা দেওয়ার পদ্ধতি হল৷ এতদিন পর্যন্ত আবেদনকারীদের লম্বা লাইনে দাঁড়াতে হত অ্যাপয়েন্টমেন্ট ও ইন্টার্ভিউ-এর তারিখ পেতে। এই নতুন পদ্ধতিতে আর আবেদনকারীকে স্টেট ট্রান্সপোর্ট অথরিটি’র দফতরে যেতে হবে না।

আবেদনের জন্য শুধুমাত্র www.transport.wb.gov.in ওয়েবসাইটে গিয়ে, Annexure-I, Annexure-II and Annexure-III – এই তিনটি ফর্ম ডাউনলোড করে ভর্তি করে জমা দিলেই মিলবে অ্যাপয়েন্টমেন্টের নির্দিষ্ট দিন ও সময়।এরপর নির্দিষ্ট দিনে নির্দিষ্ট সময়ে আবেদনকারীকে প্রয়োজনীয় নথিপত্র নিয়ে যেতে হবে স্টেট ট্রান্সপোর্ট অথরিটি’র দফতরে ইন্টারভিউয়ের জন্য।
গতিধারা প্রকল্পের অন্তর্গত এই আবেদন জমা দেওয়া প্রাথমিক পর্যায়ের কাজ। এর ফলে বিলাসবহুল গাড়ি বাণিজ্যিক কারনে কেনার পারমিট পাওয়া যাবে। একবার পারমিট পাওয়া গেলে তারপর গাড়ি কেনার জন্য সরকারি ১ লক্ষ টাকা অনুদান পাওয়া যায়। আবেদনকারী তাঁর মোবাইল ফোনে মেসেজের মাধ্যমে জানতে পারবেন যে মুহূর্তে তাঁর এই অনুদান অনুমোদিত হবে। তিনি আরও একটি মেসেজ পাবেন যে মুহূর্তে তাঁর অই টাকা সরকার থেকে দিয়ে দেওয়া হবে। এই এসএমএস পদ্ধতিটিও সরকার অল্প কিছুদিন আগেই উদ্বোধন করেছেন। এর ফলে আবেদনকারীকে খোঁজখবর নিতে কোথাও যেতে হবে না।

স্টেট ট্রান্সপোর্ট অথরিটি’র দফতর কলকাতার কসবা, শিলিগুড়ি ও দুর্গাপুরে আছে। বিগত বাম সরকারের আমলে সারা রাজ্যের মানুষকে কসবা’য় আসতে হত। তৃণমূল সরকার ক্ষমতায় এসে শিলিগুড়ি ও দুর্গাপুরে শাখা খুলেছে। এর ফলে উপকৃত হচ্ছেন উত্তর ও দক্ষিণবঙ্গের মানুষ। কলকাতার পার্শ্ববর্তী অঞ্চলের মানুষরা কসবা থেকে পারমিট পেতে পারবেন। এই প্রকল্পটি মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের ‘মানসকন্যা’। এখনও পর্যন্ত এই প্রকল্পে উপকৃত হয়েছেন ১৩,০০০ বেকার যুবক। ২০১৭-১৮ বর্ষে আর ১০,০০০ বেকার যুবককে এই প্রকল্পের সুযোগ দেওয়ার লক্ষ্যমাত্রা স্থির করেছে পরিবহণ দফতর।

শেষ কথা 

গতিধারা প্রকল্প – এর জন্য আপনাকে ওপরের উল্লেখিত জাগায় ও সঠিক পদ্ধতিতে এগোতে হবে যাতে করে আপনি আপনার জন্য বা আপনার ছেলের জন্য বা আপনার ভাই, বন্ধুদের জন্য কিছু করতে পারেন গতিধারা আপনারসাথে ও পাশে আছে। একটি বিশেষ সতর্কি করুন হল, এই প্রকল্পের জন্য অর্থাৎ এই সুবিধে পাবার জন্য কোনোৰক দালাল এর সাহায্য নেবেন না ঠকবেন। সরাসরি ভাবে এটা করতে হবে। অযথায় বাজে কোনো খপ্পরে পড়বেন না তাতে আপনার বিপদ হতে পারে। ধন্যবাদ।

লেখক – শান্তনু পাল 


Leave A Reply

Your email address will not be published.