যুবশ্রী প্রকল্প – Yuvashree Prokolpo

আসন্ন শারদোৎসবে মুখ্যমন্ত্রীর উপহার ৷ রাজ্যের বেকার যুবকদের জন্য যুবশ্রী প্রকল্পের উদ্বোধন করলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ৷ বৃহস্পতিবার নেতাজী ইন্ডোর স্টেডিয়ামে প্রদীপ প্রজ্বলনের মধ্য দিয়ে এই প্রকল্পের উদ্বোধন করা হয় ৷ এদিন বেকার যুবকদের হাতে মাসিক ১৫০০ টাকা করে ভাতার চেক তুলে দেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ৷

এদিন মুখ্যমন্ত্রী বলেন, রাজ্যে প্রায় ১ কোটি বেকার যুবক রয়েছে তাদের উজ্জ্বল ভবিষ্যতের জন্যে এই উদ্যোগ ৷ তিনি আরও জানান এমপ্লয়েন্টমেন্ট ব্যাংকে যুবকদের নাম নথিভুক্ত করা হবে ৷ রাজ্যের শিল্পপতিরা তাদের চাহিদা অনুযায়ী এই ব্যাংক থেকে যুবকদের কাজে যুক্ত করবেন ৷ এতে রাজ্যে কর্মসংস্থানের পরিমাণ বাড়বে ৷ যুবশ্রী যুবকদের অধিকার৷ এই প্রকল্প রুপায়নের মধ্যে দিয়ে ভবিষ্যৎ বাংলার উন্নয়ন হবে বলে মনে করেন মুখ্যমন্ত্রী ৷ 

 আমরা জেনে নেবো যুবশ্রী প্রকল্প কি ?

তথ্য প্রযুক্তিগত সহায়তার মাধ্যমে রাজ্য এমপ্লয়মেন্ট এক্সচেঞ্জ এর থেকে টোপিরি এমপ্লয়মেন্ট ব্যাঙ্ক।  কর্মদন্ধানীদের জন্য ২০১৩ সাল থেকেই শুরু হয় যুবশ্রী প্রকল্প। যে প্রকল্পের মাধ্যমে কর্মসন্ধানীদের ভাতা প্রদান করা হয় নিজেদের স্কিল ট্রেনিং করার জন্য। এর জন্য প্রত্যেক মাসে ১৫০০ টাকা  হয়।

এই ভাতা পাবার জন্য যে সব যোগ্যতা লাগবে 

যে কোনো কর্মসন্ধানীরাই আবেদন  করতে পারে তবে তাকে :-

  • আবেদনকারী বেকার আর পচিম্বঙ্গ বাসি হতে হবে।
  • এমপ্লয়মেন্ট ব্যাঙ্ক (www.employmentbankwb.gov.in)  এ যব সিকার (job seeker) হিসাবে তার নাম নথিভুক্ত থাকতে হবে।  অর্থাৎ যুবশ্রী প্রকল্পের মাধ্যমে ভাতা পাওয়ার জন্য প্রথমের তাকে এমপ্লয়মেন্ট ব্যাঙ্ক ওয়েব সাইড এ গিয়ে নিজের একটা প্রোফাইল তৈরী করতে হবে।
  • তাকে অন্তত অষ্টম শ্রেণী পর্যন্ত উত্তীর্ণ হতে হবে।
  • যে বছরে আবেদন করবেন সেই বছরে ১ লা এপ্রিল তারিক অনুযায়ী বয়স হতে হবে ১৮- ৪৫ বছর।
  • প্রার্থীর নাম রাজ্য বা কেন্দ্রীয় সরকারি কোনোরকম আর্থিক ঋণ বা সাহায্য থাকলে চলবে না।

আবেদন পদ্ধতি 

প্রথমে আপনাকে এমপ্লয়মেন্ট ব্যাঙ্কের www.employmentbankwb.gov.in ওয়েব সাইড থেকে আবেদন পত্র (ANNEXURE) ও Unemployment (Certifikate ANNEXURE 2) ডাউনলোড করে সেটা পূরণ করতে হবে। শিক্ষাগত যোগ্যতা, বয়সের প্রমান পত্র,জাতিগত সংশা পত্র(প্রয়োজনে) রেসিডেন্সিয়াল প্রুফ সহো পূরণ করা আবেদন নিজেদের এসডিও অফিস এ জমা করতে হয়।

ভাতা পাওয়ার পদ্ধতি 

এসডিও বা জয়েন্ট অফ এমপ্লয়মেন্ট, কলকাতা থেকে আবেদন পত্র স্ক্রুটিনি হয়ে এলে প্রথমে ১ লক্ষ্য পার্থীকে তাদের দেওয়া ফোন নম্বর/ইমেইল আইডি তে জানানো হবে। ফন বা ইমেইল না থাকলে  ফোন বা ইমেইল আইডি না থাকলে ডাকযোগে এ জানানো হবে। ফাস্ট কাম ফার্স্ট সার্ভ এর  প্রদান করা হয়।

এই ভাতা পাবার জন্য প্রার্থীর একটি জাতীয় রাষ্ট্রায়াত্ত ব্যাঙ্ক একাউন্ট থাকতে হবে। সেই একাউন্ট এ সরাসরি ভাতার টাকা পাঠিয়ে দেওয়া হবে।

তবে এক্ষেত্রে আরেকটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হল, ভারপ্রাপ্ত প্রার্থী পরবর্তী ৬ মাস পর যে বেকার অবস্থাতে রয়েছেন তার প্রমান স্বরূপ একটি “declaration form”   (ANNEXURE III ) জমা করতে হবে। প্রতি ৬ মাস অন্তর  এসডিও অফিস এ এই ফর্ম জমা করতে হবে। না হলে বাটা প্রাপ্তি বন্ধ করে দেওয়া হতে পারে।

উল্লেখ, ২০১৮  সালের বছরের প্রথমার্ধে ANNEXURE II ফর্ম জমা দেবার তারিক দিয়ে দেওয়া হয়েচে।

আগামী ১৬ জুলাই এর মধ্যে জমা দেবার জন্য নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

এমপ্লয়মেন্ট ব্যাঙ্কের  ওয়েবসাইড 

https://employmentbankwb.gov.in/yuvasree.php

শেষ কথা 

যেহেতু চাকরির বাজার খুব একটা ভালোই নয় সেহেতু এই যুবশ্রী প্রকল্প তা কিছু কিছু মানুয়াসের  কিছুটা হলেও সস্থি মিলবে। তার সাথে সত্যহে এটাও জানি যে একটি বেকার চেকের কতটা কষ্ট, আর এটাও জানি যে ১৫০০ তাকে কিছুই হয় না। কিন্তু সরকারের একটা দায়বদ্ধতা আছে মানুষের সাথে বা মানুষের পাশে দাড়ানোর। তাই আপনারা এই প্রকল্পের স্মুখীন বা এই প্রকল্প পেতে গালে আপনাকে আমাদের লেখাটা প্রথম থেকে ভালো করে পড়বেন। আর এই  যুবশ্রী প্রকল্প পাবার জন্ন্য বাকি  বান্ধবদেড় লেখাটা শেয়ার করুন। মানুষকে ভালোবাসুন দেখবেন আপনিও ভালো থাকবেন। ধন্যবাদ।



Comments are closed.