HIV এর লক্ষন – Symptoms of HIV

0

HIV এর পুরো নাম Human Immunodeficiency Virus. HIV এমন একটি অতি ক্ষুদ্র ভাইরাস যা শরীরে ঢুকে রক্তের শ্বেতকনিকা ধ্বংশের মাধ্যমে তার রোগ প্রতিরোধ এর  ক্ষমতা নষ্ট করে ফেলে। HIV শরীরে প্রবেশের সাথে সাথে কোনো লক্ষন দেখা দেয়না। এটি সংক্রমিণের শুরু থেকে এইডস হওয়ার সময় ৬ মাস থেকে বেশ কয়েক বছর হতে পারে। কোনো কোনো ক্ষেত্রে ৫ থেকে ১০ বছর বা তারো বেশিসময় পরে এইডস ধরা পড়ে। আমাদের আজকের এই আলোচনায় বোঝা যাবে বা জানা যাবে HIV লক্ষণ গুলো। আমরা জানতে পারবো   আজকের প্রধান বিষয়টি হল HIV এর লক্ষন। তাই আমরা  সরাসরি চলে যাবো আলোচনার পর্যায়।

এইডস একটি সংক্রামক রোগ যা এইচআইভি ভাইরাসের সংক্রমণের মাধ্যমে হয়। এটি মানুষের দেহের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতাকে দুর্বল করে দেয়। এইচআইভি সংক্রমণের ফলে অন্যান্য রোগ যেমন-নিউমোনিয়া, মেনিননজাইটিস এমনকি ক্যান্সারও হতে পারে। এইচআইভি সংক্রমণের পরের ধাপকেই এইডস বলা হয়।এইচ.আই.ভি. সংক্রমণের সঙ্গে সঙ্গেই সর্বদা এইডস হয়না। কখনো কখনো লক্ষন প্রকাশ পেতে কয়েক বছর সময়ও লেগে যেতে পারে। তবে এইচ.আই.ভি. আক্রান্ত হবার পর এই ভাইরাসকে শরীর থেকে পুরোপুরি দূর করার উপায় এখনো আবিষ্কৃত হয়নি। তাই এইচ.আই.ভি. সংক্রমণ হলে এইডস প্রায় অনিবার্য। এইডস এর নির্দিষ্ট কোন লক্ষণ নেই। তবে, এইডস আক্রান্ত হলে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা কমে যায়। ফলে এইডস রোগী খুব সহজেই অন্য রোগে আক্রান্ত হয়ে পড়ে। এবং তখন সেই রোগের লক্ষণ প্রকাশিত হয়। এমন লক্ষণগুলোর মধ্যে উল্ল্যেখযোগ্য হচ্ছে:

HIV বা এইডসের প্রধান লক্ষন গুলো হল

জ্বর

ARS আক্রান্তের একেবারে প্রথম দিকের লক্ষণ হতে পারে মৃদু জ্বর, যা প্রায় ১০২ ডিগ্রি ফারেনহাইট পর্যন্ত হতে পারে এবং এর সাথে থাকতে পারে কিছু সাধারণ মৃদু উপসর্গ যথা, ক্লান্তি, লিম্ফ গ্লান্ডের স্ফীতি, এবং গলা ব্যাথা। ক্লান্তি শরীরের রোগ প্রতিরোধী ক্ষমতা লোপ পেয়ে ব্যাথা বোধ হয় এবং এটির কারণে ক্লান্তি এবং তন্দ্রা ভাব হতে পারে।

ক্লান্তি বোধ 

HIV এর প্রথম এবং পরবর্তী লক্ষণ উভয়ই হতে পারে ক্লান্তি বোধ। ব্যাথা যুক্ত পেশী, জোড়াতে ব্যাথা, লিম্ফ স্ফীতি ফ্লু, mononucleosis, বা অন্য কোনও রকমের ভাইরাসজনিত সংক্রমণ, এমনকি সিফিলিস বা হেপাটাইটিস এর সাথে ARS লক্ষণ ভুল করা হতে পারে।

ত্বকে ফুস্কুড়ি

 HIV/AIDS এর প্রথম দিকে এবং পরবর্তীতে চামড়ায় ফুস্কুড়ি দেখা দিতে পারে। গলা এবং মাথা ব্যাথা অন্যান্য লক্ষণের সাথে গলা এবং মাথা ব্যাথা অনেক সময় ARS এর প্রাসঙ্গিক লক্ষণ হতে পারে, প্রাথমিক অবস্থায় HIV ব্যপক সংক্রমনের কারণ হতে পারে।

নিউমোনিয়া

জীবাণুর দ্বারা একটি মারাত্মক সংক্রমণ হল নিউমোনিয়া যা আপনার রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা যদি সঠিক ভাবে কাজ না করে তবে হতে পারে। অন্যান্য opportunistic সংক্রমণের মধ্যে আছে toxoplasmosis, একটি পরজীবী জনিত সংক্রমণ যা মস্তিস্ক কে আক্রান্ত করে; cytomegalovirus নামক হারপেস ভাইরাস; এবং thrush নামক ছত্রাক জনিত সংক্রমণ। রাত্রি কালীন ঘাম সংক্রমণের পরবর্তী একটি সাধারণ অবস্থা হল রাত্রিকালীন ঘাম এবং এটি কোনরূপ পরিশ্রম বা রুমের তাপমাত্রার সাথে সম্পর্কিত নয়।

নখের পরিবর্তন

নখের পরিবর্তন যেমন clubbing (নখ পুরু হয়ে বেঁকে যাওয়া), নখ ভেঙ্গে যাওয়া বা ছত্রাকের সংক্রমণের কারণে নখের রঙের পরিবর্তন (সমান্তরাল ভাবে বা আড়াআড়ি ভাবে কাল এবং বাদামী দাগ)। ছত্রাকের সংক্রমণ Candida এর কারণে এক ধরণের ছত্রাক জনিত মুখের সংক্রমণ হল Thrush।

ওজন কমে যাওয়া

রোগের ব্যাপক আক্রান্তের সময়ে মারাত্মক ডায়রিয়াতে সংক্রমণের ফল স্বরূপ ওজন কমে যাওয়ার লক্ষণ দেখা দিতে পারে। কোন আক্রান্ত ব্যাক্তি যদি ডায়রিয়া বা দুর্বলতা এবং জ্বরে ৩০ দিনের বেশী একাধারে ভোগে এবং ঐ সময়ে তার ১০% শরীরের ওজন হারায় তবে সে wasting syndrome এ আক্রান্ত বলে ধরে নেয়া হয়। শুকনা কাশি কয়েক সপ্তাহ ধরে যদি শুস্ক কাশি থাকে এবং সহজে সারবে না এমন মনে হয়, তবে তা HIV এর একটি লক্ষণ হতে পারে।

বমি ভাব

বমি করা, ডায়রিয়া HIV এর প্রাথমিক পর্যায়ে ৩০% থেকে ৬০% লোক স্বল্প মেয়াদী বমি ভাব, বমি করা বা ডায়রিয়াতে আক্রান্ত হয়ে থাকে। এ সকল লক্ষণ গুলি antiretroviral থেরাপির কারণে দেখা দিতে পারে এবং পরবর্তীতে সংক্রমণের কারণেও তা হতে পারে।

বিভ্রান্তি বা মনোযোগে সমস্যা

বিভ্রান্তি এবং মনোযোগের অসুবিধা ছাড়াও, AIDS সম্পর্কিত dementia স্মৃতি শক্তির সমস্যার সাথে এবং আচরণ জনিত সমস্যা যেমন ক্রোধ বা খিটখিটে মেজাজ জনিত সমস্যার সাথে জড়িত। ঠাণ্ডা জনিত প্রদাহ অথবা যৌনাঙ্গের হারপেস হারপেস ভাইরাসে আক্রান্ত হওয়াও HIV তে আক্রান্তের ঝুঁকির একটি অন্যতম কারণ। এটা এ কারণে যে যৌনাঙ্গের হারপেস এর কারণে ক্ষত হতে পারে যা যৌন ক্রিয়ার সময় খুব সহজে HIV সংক্রমণের কারণ হতে পারে। Tingling এবং দুর্বলতা এটিকে peripheral neuropathy বলা হয়, যাতে সাধারণত অনিয়ন্ত্রিত ডায়াবেটিস যুক্ত ব্যাক্তিরা বেশী আক্রান্ত হয়ে থাকে।

অনিয়মিত ঋতুচক্র

ব্যাপক ভাবে HIV আক্রান্ত হলে অনিয়মিত ঋতুচক্রের ঝুঁকি বাড়িয়ে দিতে পারে, যেমন তুলনামূলক কম এবং হালকা মাসিক হওয়া।

ক্লান্তি ও মাথা ব্যাথা 

অন্যান্য লক্ষণের সাথে গলা এবং মাথা ব্যাথা অনেক সময় ARS এর প্রাসঙ্গিক লক্ষণ হতে পারে, প্রাথমিক অবস্থায় HIV ব্যপক সংক্রমনের কারণ হতে পারে।

রাত্রি কালীন ঘাম 

সংক্রামণের পরবর্তী একটি সাধারণ অবস্থা হল রাত্রিকালীন ঘাম এবং এটি কোনোরূপ পরিশ্রমের বা রূপের তাপমাত্রার সাথে সম্পর্কিত নয়।

শেষ কথা 

এখানে শেষ কথা বলতে অনেকগুলো কথা বলার আছে যা প্রতিনিয়ত মানুষের ওপরের উল্লেখিত কারণ গুলো মাথায় রাখতে হবে। ওপরের উল্লেখিত কোনো একটা কারও যদি আপনার কাছে ঘেসে দাঁড়ায় তৎক্ষণাৎ তার চিকিৎসা অথবা ডাক্তারের সাথে পরামর্শ বা ডাক্তার দেখানো উচিত। নতুবা আপনার একটি ভুল বা আপনার একটি অবজ্ঞা আপনাকে ফেলে দিতে পারে মৃত্যুর মুখে, চলে যেতে পারেন আপনি দুনিয়া ছেড়ে।  আরও একটা কথা এখানে বলা উচিত সকল বন্ধুদের উদ্দ্যেশে যে শুধু মাত্র যৌন মিলনের কারণেই কিন্তু HIV রোগ এর  উৎস নয়। নানান জিনিস থেকে আপনি আক্রান্ত হতে পারেন। আক্রান্ত মানুষদের পাশে দাঁড়ান সাহায্য করুন। তাদেরকে ঘৃণা করবেন না তার কারণ HIV কোনো ছোয়াচে রোগ নয়। সঙ্গে থাকুন পাশে থাকুন। ভালো থাকুন ও ভালো রাখুন। ধন্যবাদ।

লেখক – শান্তনু পাল  


Leave A Reply

Your email address will not be published.