গাঁজা খাওয়ার উপকারিতা – Benefits of Consuming Marijuana in Bengali

কি বন্ধুরা ভালো আছেন তো ? আশা করি সকলেই ভালো আছেন। বন্ধুরা আজকে আমরা এমন একটা বিষয় নিয়ে কথা বলবো বা আলোচনা করবো যাতে করে বেশকিছু মানুষের উপকার হয়। হ্যা বন্ধু সেই জিনিসটার নাম হল গাজা। অনেকেই ভাববেন যে গাজার আবার কি ভালো গুন আছে, ওটা তো একটা নেশার জিনিস আর খুউব খারাপ জিনিস। আবার অনেকেই হয়তো হাসবেন আর বলবেন যে গাজার আবার ভালো জিনিস হয় নাকি ইত্যাদি ইত্যাদি। তবে বন্ধুরা একটা কথা বলবো যে বেশিরভাগ জিনিসেরই ভালো দিক আর মন্দ দিক আছে। কিন্তু আমরা সেটাকে জানার চেষ্টা করিনা বা জানিও না। হ্যা বন্ধুরা একথা কিন্তু সত্যি যে গাজার মধ্যে আছে বেশ কিছু উপকারিতা যে আপনি জানলে চমকে যাবেন। আমাদের দৈনন্দিন জীবনে এমন অনেক নেশাগ্রস্থ জিনিস আছে যেটার মধ্যে আছে উপকারিতা। কিন্তু বন্ধুরা কোনো নেশার জিনিস যে বেশি বা রোজ একদম ভালো নয়, তাতে আপনার ক্ষতি হতে পারে। আপনি যেই নেশার জিনিস গ্রহণ করবেন না কোনো একটু তার ব্যাপারে জেনে নিয়ে করা ভালো।

ক্তরাষ্ট্রে পরিচালিত একটি নতুন গবেষণায় প্রমানিত হয়েছে যে, গাঁজার গায়ে যতটা কলঙ্ক লেপে দেয়া হয়েছে, গাঁজা আসলে ততটা মারাত্বক ক্ষতিকর মাদকদ্রব্য নয়। তাছাড়া সাধারণভাবে মনে করা হতো যে, আপাতত কিছুটা নিরীহ মনে হলেও গাঁজা অন্যান্য উচু মাত্রার মাদকের দিকে সেবনকারীদের টেনে নিয়ে যায়। অর্থাৎ উচু মাত্রার মাদকদ্রব্য যেমন কোকেন, হিরোইন এগুলোর গেটওয়ে হিসেবে কাজ করে এই গাঁজা। কিন্তু নতুন এই গবেষণা গাঁজা সম্পর্কিত এই সকল ধারণা উল্টে দিয়েছে। নতুন এই গবেষণার ফলাফল বিশ্লেষণ করে চিকিৎসা বিজ্ঞানীরা আগের প্রচলিত ধারণার ঠিক বিপরীত মতামত দিয়েছেন। তারা জানিয়েছেন যে, সবুজ পাতার এই নেশা যারা নিয়মিত সেবন করে তারাই বরং কোকেন, হেরোইনসহ অন্যান্য কঠিন মাদ্রকদ্রব্য থেকে নিজেদের সরিয়ে রাখতে পারে। দি ইন্ডিপেন্ডেন্টে প্রকাশিত তথ্য অনুসারে জানা যায় যে, পাঁচ বছর মেয়াদী এই গবেষণায় ১২৫ জন মাদকাসক্ত ব্যক্তিকে অন্তর্ভূক্ত করা হয়েছিল। এদের সকলে স্থায়ী ব্যাথায়ও আক্রান্ত ছিল। তাদের ব্যথা কমানোর উপায় হিসেবে গাঁজা সেবন করতে দেয়া হয়েছিল। এদের মধ্যে ৪২ জন গাঁজা সেবন করতে রাজি হয়নি। তারা গাঁজা থেকে নিজেদের সরিরে রেখেছিল। 

গাজা,গাঁজা তৈরি,গাঁজা চাষ বাংলাদেশ,গাজার নৌকা,গাঁজা,গাজা খোর,গাঁজা গাছ,গাজা বানানো,গাঁজার যত গুন,জানলে গাঁজা সম্পর্কে পাল্টেই যাবে আপনার ধারনা,গাঁজা সম্পর্কে পাল্টেই যাবে আপনার ধারনা,গাঁজার যত গুন জানলে গাঁজা সম্পর্কে পাল্টেই যাবে আপনার ধারনা,গাজা খাওয়ার উপকারিত্‌গাজা কিভাবে খায়,গাঞ্জা খাওয়া,গাজা খাওয়ার নিয়ম,গাঞ্জা খাওয়ার নিয়ম গাঁজার যত গুন, জানলে গাঁজা সম্পর্কে পাল্টেই যাবে আপনার ধারনা! গাঁজায় আসক্তি হলে, বা সে আসক্তি বাড়াবাড়ি পর্যায়ে গেলে জীবনে বিপদ ডেকে আনতে পারে। তবে গবেষকরা বলছেন পরিমাণমতো গাঁজা ওষুধ হিসেবে সেবন করলে অনেক উপকার পাওয়া যায়। জেনে নিন পরিমাণমতো গাঁজা সেবনের নয়টি উপকারিতা।

ক্যানসার প্রতিরোধ

এই বিষয়টি যুক্তরাষ্ট্র সরকারিভাবেই স্বীকার করেছে। ২০১৫ সালে সে দেশের ক্যানসার বিষয়ক ওযেবসাইট ক্যানসার অর্গ-এ জানানো হয়,গাজা অনেক ক্ষেত্রে টিউমারের ঝুঁকি কমিয়ে ক্যানসার প্রতিরোধকেরও ভূমিকা পালন করে। (বেশি সেবন করা ভালো নয় ) 

কেমোথেরাপির ক্ষতি কম

ইউএস এজেন্সি ফর ড্রাগ জানিয়েছে, গাজা ক্যানসার রোগীর রোগযন্ত্রণা অন্যভাবেও কমায়। ক্যানসার রোগীকে এক পর্যায়ে কেমোথেরাপি নিতে হয়। কেমোথেরাপির অনেক পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া। মারিজুয়ানা কেমোথেরাপির পার্শ্বপ্রতিক্রিয়াজনিত অনেক ক্ষতি লাঘব করে। (বেশি সেবন করা ভালো নয় ) 

মৃগীরোগ কমায়

যুক্তরাষ্ট্রের ভার্জিনিয়া কমনওয়েলথ বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষকরা ২০১৩ সালেই জানিয়েছেন, গাজা  বা গাঁজা একটি নির্দিষ্ট মাত্রায় নিলে মৃগী বা এ ধরণের কিছু স্নায়ুরোগ থেকে দূরে থাকা যায়। বিজ্ঞান বিষয়ক সাময়িকী জার্নাল অফ ফার্মাকোলজি অ্যান্ড এক্সপেরিমেন্টাল থেরাপিউটিক্স-এ ছাপাও হয়েছে তাদের এই গবেষণালব্ধ তত্ত্ব। (বেশি সেবন করা ভালো নয় ) 

আলজাইমার   

দ্য জার্নাল অফ আলজাইমার  ডিজিজে প্রকাশিত এক প্রতিবেদনে বলা হয়, গাজা  মস্তিষ্কের দ্রুত নিষ্ক্রিয় হয়ে পড়াও রোধ করে। আর এভাবে আলজাইমার ঝুঁকিও কমাতে পারে গাজা। তবে গাজা ‘ওষুধ’ হলেই রোগ সারবে, কারো নিয়ন্ত্রণহীন আসক্তির পণ্য হলে নয়।  (বেশি সেবন করা ভালো নয় )

গ্লূকোমা দূরে রাখতে সহায়তা করে 

যুক্তরাষ্ট্রের ন্যাশনাল আই ইন্সটিটিউট জানিয়েছে,গাজা গ্লূকোমার ঝুঁকিও কমায়। গ্লূকোমার চোখের এমন এক রোগ যা চির অন্ধত্ব ডেকে আনে। (বেশি সেবন করা ভালো নয় ) 

স্ট্রোকের ঝুঁকি কমায়

এটি যুক্তরাজ্যের ইউনিভার্সিটি অফ নটিংহ্যামের গবেষকদের উদ্ভাবন। তারা গবেষণা করে দেখেছেন, গাজা মস্তিষ্ককে সুস্থ রাখতেও সহায়তা করে। ফলে স্ট্রোকের ঝুঁকি কমে।  (বেশি সেবন করা ভালো নয় ) 

মাল্টিপল সক্লেরোসিসবিরোধী

মানুষের স্নায়ুতন্ত্রে একটি বিশেষ স্তর ক্ষতিগ্রস্থ হলে ‘মাল্টিপল সক্লেরোসিস’ বা এমএস নামের এক ধরণের স্নায়ুরোগ হয়। ডাক্তারের পরামর্শ অনুযায়ী গাজা সেবন করলে এই রোগের ঝুঁকিও কমে। (বেশি সেবন করা ভালো নয় ) 

ব্যথা নিরোধ

ডায়াবেটিস চরম রূপ নিলে রোগীদের অনেক সময় হাত-পা এবং শরীরের নানা অংশে জ্বালা-যন্ত্রণা হয়। ইউনিভার্সিটি অফ ক্যালিফোর্নিয়ার গবেষকরা বলছেন, ক্যানাবিস সেই যন্ত্রণা লাঘব করতে সক্ষম।(বেশি সেবন করা ভালো নয় ) 

হেপাটাইটিস’সি-র পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া কমায়

হেপাটাইটিস সি-র পার্শ্বপ্রতিক্রিয়াও কমায় মারিজুয়ানা। নির্দিষ্ট মাত্রায় ওষুধের মতো গাঁজা সেবন করিয়ে দেখা গেছে এই রোগে আক্রান্তদের শতকরা ৮৬ ভাগেরই পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া অনেক কমেছে। (বেশি সেবন করা ভালো নয় ) 

হেপাটাইটিস ‘সি’-র পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া কমায়

হেপাটাইটিস সি-র পার্শ্বপ্রতিক্রিয়াও কমায় মারিজুয়ানা। নির্দিষ্ট মাত্রায় ওষুধের মতো গাঁজা সেবন করিয়ে দেখা গিয়েছে এই রোগে আক্রান্তদের শতকরা ৮৬ ভাগেরই পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া অনেক কমেছে।-সংবাদমাধ্যম

শেষ কথা 

গাঁজার নেশা হলে, সে নেশা বাড়াবাড়ি পর্যায়ে গেলে জীবনে বিপদ ডেকে আনতে পারে৷ তবে, গবেষকরা বলছেন পরিমাণমতো গাঁজা ওষুধ হিসেবে সেবন করলে নাকি অনেক উপকার৷ কিন্তু বন্ধুরা আমি আগেও বলেছি এখনো বলছি যে কোনো নেশাগ্রস্থ জিনিস বেশি খেলে সেটা কিন্তু আমাদের ক্ষতি হয়। আপনি যদি কোনো জিনিস নেশা করে থাকেন সেটা যায় হিক না কোনো বেশি বাড়াবাড়ি বা রোজ একদমই উচিত না এতে আপনার অনেকটাই ক্ষতি হতে পারে। ধন্যবাদ। 

লেখক – শান্তনু পাল 



Comments are closed.