মাথা ব্যাথার ঔষধ – Home Remedy for Headache

শারীরিক অনেক ব্যাথার মধ্যে আমাদের মাথা ব্যাথা কিন্তু এক অন্যতম। মাথা ব্যাথা নাই এমন লোক মনে হয় খুঁজে পাওয়া যাবে না। মাথা ব্যথা খুব ছোট উপসর্গ হলেও অতিষ্ঠ হতে হয়। আমাদের দৈনন্দিন জীবনে চলাফেরার সাথে সাথে বিভিন্ন কারণে হয়ে ওঠে শারীরিক দুর্বলতা আর তার থেকেই শুরু হয় আমাদের মাথা ব্যাথা। প্রায় সকলের মধ্যেই মাথা ব্যথার প্রবণতা দেখা যায়। যে কারণে বলা যায় এটি খুব পরিচিত একটি সমস্যা। যেকোন বয়সের মানুষেরাই মাথা ব্যথায় আক্রান্ত হতে পারেন। মাথা ব্যথা হলে বিশেষ করে মাথা ব্যথার পরিমাণ যাদের বেশি হয় তাদের বমি বমি ভাব দেখা যায় বা কখনও কখনও বমিও করে। চট করে ঘুম হতে চায় না বা ঘুম আসে না। তার জন্য আমরা সাধারণ মানুষরা অনেক সময় ওষুধের দোকান থেকে মুখে বলে ওষুধ নিয়ে আসি এবং সেটাই খাই, হয়তো অনেক সময় সেই ওষুধ এ কাজ হয়ে যায় আর আমরা ঘুমোতে পারি। মাথা ব্যথা হলে আমরা সাধারণ মানুষরা অতোটা বেশি চিন্তা করি না যে কিসের জন্য আমাদের মাথা ব্যাথা করে। মাথা ব্যথা অনেক কারণেই হতে পারে। আমাদের দৈনন্দিন জীবনে চলা ফেরার মধ্যে যে দৌড় ঝাঁপ হয় তার থেকে সৃষ্টি হয় আমাদের শারীরিক দুর্বলতা যার থেকে তৈরী হয় আমাদের মাথা ব্যাথা। সেটা আপনাকে বুঝতে হবে যে আমাদের মাথা ব্যথা টা কি রোজ হয়, নাকি বেশি কাজ কর্ম বা দৌড় দৌড়ি করলে হয় নাকি ঘুম না হলে হয়। বন্ধুরা একটা কথা বলতে পারি আমাদের প্রত্যেকের জীবনে মোটামুটি ৬-৮ ঘন্টা দিনে ঘুমোনো উচিত। ঘুম না হলে মাথা ব্যাথা হতে পারে। আমাদের মানব দেহের শরীরের হেড অফিস হলো আমাদের ব্রেন আর এই ব্রেন থাকে আমাদের মাথায়। আমরা চলতি কথায় অনেকেই বলে থাকি মাথা বা মাথার ব্রেন হলো আমাদের মানব দেহের হেড অফিস, যেটা আমাদের প্রতি নিয়ত কি কি করতে হবে সেটার নির্দেশ দিয়ে থাকে। সেক্ষেত্রে বলাই যায় সারাটা দিন ব্রেন আমাদের কাজ করে, সেটা যেকোনো কাজ এই হোক না কোনো, বা কোনো অনুভব করা ইত্যাদি ইত্যাদি।

মাথা ব্যাথার ঔষধ – Home Remedy for Headache

আমরা যা কাজ করি বা আমাদের সব কিছুর হেড অফিস হলো আমাদের ব্রেন। আমাদের ব্রেন যদি সুস্থ থাকে আপনার অন্যান্য শারীরিক ব্যাথা  হলেও বা থাকলেও মাথা ব্যাথা হবে না। যেহেতু আমাদের ব্রেন নিয়মিত আমাদের কাজের নির্দেশ দিয়ে থাকে সেহেতু আমাদের ব্রেইনকে একটু বিশ্রামও দেওয়া দরকার আর সেটা হলো ঘুম। আপনি নিজেই একটু ভাবুন না আপনি দিনে ২৪ ঘন্টার মধ্যে যদি ২৪ ঘন্টায় কাজ করে থাকেন, হয়তো অনেকেই করে থাকেন কিন্তু ঠিক তার পরের দিন আপনি আর সেই কাজ বা অন্য কাজ করার মতো অবস্থায় থাকবেন না। আপনার শরীর পারমিট করবে না অর্থাৎ ব্রেন কিন্তু আর পারমিট করবে না কারণ সে তখন দুর্বল তার বিশ্রাম এর দরকার। আর সেটা না পাওয়াতেই শুরু হয়ে যায় মাথা ব্যাথা। চলুন মাথা ব্যথার বেশ কিছু কারণ আমরা একটু জেনে। যে কারণে সাধারণত মাথা ব্যাথা আমাদের হয়ে থাকে সেটা হলো –

1. মানসিক চাপ

2. দুশ্চিন্তা

3. ক্লান্ত দেহ

4.  সাইনাস সমস্যা

5.  মাইগ্রেন

6.  পানিশুন্যতা

7.  ঘুম কম হওয়া

8. মাথায় আঘাত লাগা ইত্যাদি ইত্যাদি।

মাথাব্যথা বেশ যন্ত্রণার একটি বিষয়। দিনভর মাথা ব্যথা নিয়ে কাজ করা বেশ অস্বস্তিকর। তবে কিছু ঘরোয়া উপায় আছে যা  আপনার মাথাব্যথা দূর করতে সাহায্য করবে। এই পদ্ধতি আপনি অফিসের ডেস্কে কাজ করার সময়ও করতে পারবেন। অথবা ভ্রমণে যাওয়ার সময়ও করতে পারবেন। মাথা ব্যাথা দূর করার প্রাথমিক, নিরাপদ এবং বিজ্ঞান সম্মত উপায় এটি। মাথা ব্যাথা সারাতে বেশ কাজে দেবে এটি। তবে নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে গেলে অবশ্যই চিকিৎসকের কাছে যেতে হবে আপনাকে। তবে আর দেরি কেন? আসুন জানি কীভাবে মুক্ত হবেন এই ব্যথা থেকে।

আকুপ্রেশার

বহুবছর ধরে মাথা ব্যথা দূর করতে অনেকেই আকুপ্রেশার পদ্ধতি ব্যবহার করে আসছেন।এই ছোট্ট ঘরোয়া পদ্ধতিটি আপনাকে এক মিনিটের মধ্যে মাথা ব্যথা সারাতে সাহায্য করবে। বাম হাতের বৃদ্ধাঙ্গুলি এবং তর্জনির মাঝখানের অংশে অন্য হাতের বৃদ্ধাঙ্গুলি ও তর্জনি দিয়ে চাপ দিন এবং ঘুরিয়ে ঘুরিয়ে ম্যাসাজ করুন। একই ভাবে ডান হাতেও করুন। বিশেষজ্ঞরা বলেন, আশা করা যায় এতে এক মিনিটেই মাথা ব্যথা সারবে।

লবণযুক্ত আপেল

ব্যথা যদি বেশি হয় তবে এই ঘরোয়া পদ্ধতিটি চেষ্টা করে দেখতে পারেন।এক টুকরো আপেল চিবুতে পারেন তবে এতে একটু লবণ ছিটিয়ে নেবেন। এটা দ্রুত ব্যথা মুক্ত করতে সাহায্য করবে।

জল পান করুন

একচুমুক পানি পানও আপনাকে এক মিনিটের মধ্যে মাথা ব্যথা সারাতে কাজে দেবে। যখন আমাদের শরীর আর্দ্র হতে থাকে তখন ব্যথা ধীরে ধীরে কমে।

লবঙ্গ

কিছু লবঙ্গ তাওয়ার মধ্যে গরম করে নিন। গরম লবঙ্গ একটি রুমালের মধ্যে নিন। এক মিনিট এর ঘ্রাণ নিন এবং দেখুন মাথা ব্যথা চলে গেছে।

আদা চিবুতে পারেন

এক পিস টাটকা আদা চিবুতে পারেন এতে ৬০ সেকেন্ডে মাথা ব্যথা দূর হবে। আদা একটু বাজে গন্ধের হলেও পদ্ধতিটি কাজের।

হাসি খুশি মন

অনেকেই হয় তো বিশ্বাস করবেন না, তবে মনকে যদি ইতিবাচক এবং ভালো বিষয়ের দিকে নিয়ে যান তবে মাথা ব্যথা ৬০ সেকেন্ডেই দূর হবে। চেষ্টা করেই দেখুন না!

লেবু 

মাথা ব্যথার জন্য লেবু খুবই উপকারী। কারণ লেবু দেহের এসিড-এলকালাইন (acid-alkaline) -এর মাত্রা ঠিক রাখে।মাথা ব্যথা শুরু হওয়ার পর কুসুম গরম পানিতে লেবুর রস মিশিয়ে সেটি খেয়ে নিন। পেটে গ্যাসের সমস্যা হলেও অনেক সময় মাথা ব্যথা করে। লেবুর খোসা গ্রেট করে পেস্ট বানিয়ে ব্যথার আক্রান্ত স্থানে লাগিয়ে নিন। এতে দেখবেন কিছুক্ষণ পরেই ব্যথা কমে যাবে।

পুদিনা পাতা

পুদিনা পাতা মাথা ব্যথার জন্য খুবই উপকারী। তাই মাথা ব্যথা হলে পুদিনা পাতা ব্যবহার করে দেখুন, এতে করে মাথা ব্যথা কমে যাবে খুব দ্রুত। পুদিনা পাতা দিয়ে চা তৈরি বানান। পানি বয়েল হয়ে গেলে নামিয়ে অন্তত ১০ মিনিট ঢেকে রাখুন। এরপর মধু মিশিয়ে সেটি খেয়ে নিন। আপনি পুদিনার পাতার তেল ব্যবহার করতে পারেন। এটি মাথা ব্যথা সারাতে বেশ উপকারী। ঘাড়ে, মাথায় ম্যাসাজ করুন, তাতে করে ব্যথা কমে যাবে। মাথা ব্যথার সময় যাদের বমি বমি ভাব হয় তারা পুদিনা পাতা খেতে পারেন। এতে উপকার হবে।

নরমাল লিকার চা 

সাধারণত আমরা হালকা মাথা ব্যাথা হলে আদা দিয়ে লিকার চা খেয়ে থাকি তাতে অনেকটাই আমাদের স্বস্তি মেলে। হালকা মাথা ব্যাথা হলে আপনি একটু আধা দিয়ে লিকার চা খেয়ে দেখতে পারেন।

শেষ কথা 

 কথায় আছে যেমন অনেকেই মজা করে বলে যে পেট থাকলেই পেটের ব্যাথা হয় তেমন মাথা থাকলেই মাথার ব্যাথা হয় বা হয়ে থাকে। এতে বিন্দুমাত্র ঘাবড়ানোর কিছু নেই। আমাদের দৈনন্দিন জীবনে চলা ফেরার মধ্যে দিয়ে নানান কাজের প্রেসারে মাথা ব্যাথা হতেই পারে ওপরের কিছু  ঘরোয়া উপায় গুলি আপনি করে একবার দেখতে পারেন। বা  আমরা যদি তাতে সন্তুষ্ট না হই তাহলে আমাদের ওষুধের দোকান থেকে যেরকম মাথা ব্যাথার ওষুধ কিনে খাই সেরকমও আমরা খেতে পারি। তবে আপনাদের সবাইকে একটি কথা বলবো বা বলতে চাই আপনার নিজের বা আপনাদের সন্তানদের বা চেনা পরিচিত কারোর যদি দিনের পর দিন মাথা ব্যাথা হয় বা মাথা ব্যথা করে থাকে ঘরয়া পদ্ধতি তেও কোনো কাজ হচ্ছে না বা মুখে বলে আনা ওষুধও কোনো কাজ দিচ্ছে না তবে একদমই না দেরি করে সত্তর যোগাযোগ করা উচিত নিকটবর্তী কোনো ডাক্তার এর কাছে। দেরি করবেন না। মাথা ব্যাথার সাথে সাথে মাথায় এটাও রাখতে হবে যে আমাদের কোনো কিছুই বেশি অবহেলা করা উচিত না। এক আদ বার মাথা ব্যাথা হয়েই থাকে কিন্তু জুড়ি রোজ রোজ মাথা ব্যথা যদি কারোর হয়ে থাকে সেটা একদমই ভালো লক্ষণ নয়। তার জন্য ডাক্তার কে দেখিয়ে, সমস্যা টা  পুরো খুলে বলে অবসসই একটা এক্স রে করা উচিত। যাই হোক ভালো থাকবেন ভালো রাখবেন, সুস্থ থাকুন আর সুস্থ রাখুন। আর লেখাটা ভালো লাগলে শেয়ার করতে একদম ভুলবেন না। বলা যায় না আপনার একটা শেয়ার হতে পারে কোনো মানুষের মাথা ব্যথা থেকে মুক্তি পাওয়ার ওষুধ। ধন্যবাদ।



Comments are closed.