চলে গেলেন ভারত বর্ষের প্রাক্তন প্রধান মন্ত্রী অটল বিহারী বাজপেয়ী : দেখে নিন তাঁর জীবন সম্পর্কে কিছু তথ্য

অটল বিহারি বাজপেয়ী  (২৫ডিসেমবর ১৯২৪ – ১৬ আগস্ট ২০১৮) ভারতের রাজনীতিবিদদের মধ্যে অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিত্ব।  উনি  তিনবার ১৯৯৬ সালে ১৩ দিনের মেয়াদকালের জন্য ভারতের প্রধানমন্ত্রীর দায়িত্ব পালন করেন। ১৯৯৮ থেকে ১৯৯৯ পর্যন্ত, এবং তারপর ১৯৯৯ থেকে ২০০৪ পর্যন্ত পূর্ণ মেয়াদে ভারতবর্ষের প্রধানমন্ত্রীর পদে আসীন ছিলেন।

তিনি চার দশকেরও বেশি সময় ধরে ভারতীয় সংসদ সদস্য ছিলেন। তিনি ২০০৯ সাল পর্যন্ত উত্তর প্রদেশের লখনৌয়ের সংসদ সদস্য হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন, তিনি স্বাস্থ্য সংক্রান্ত উদ্বেগের কারণে সক্রিয় রাজনীতিতে অবসর গ্রহণ করেন। বর্তমান ভারতীয় জনসংঘের প্রতিষ্ঠাতা সদস্য ছিলেন তিনি। তিনি প্রধানমন্ত্রী মোরারজি দেশাই মন্ত্রিপরিষদের মন্ত্রী ছিলেন।

জনতা সরকার পতনের পর, ১৯৮০ সালে জনসংঘ পুনরায় ভারতীয় জনতা পার্টিতে পুনর্গঠন করে। তিনি ছিলেন ভারতের প্রথম প্রধানমন্ত্রী যিনি পাঁচ বছরের মেয়াদ পূর্ণ করতে ভারতীয় জাতীয় কংগ্রেসের অন্তর্গত ছিলেন না।

তিনি ২০১৪ সালে ভারতের রাষ্ট্রপতি কর্তৃক ভারতের সর্বোচ্চ বেসামরিক সম্মান, ভারত রত্নতে সম্মানিত হন।

মে ১, ১৯৯৮ সালে ভারতের রাজধানীতে পোখরান মরুভূমিতে পাঁচটি ভূগর্ভস্থ পারমাণবিক পরীক্ষার আয়োজন করে। ১৯৭৪ সালে ভারতের প্রথম পারমাণবিক পরীক্ষার (স্মাইলিং বুদ্ধ) পর ২৪ বছর পর এই পরীক্ষায় পোখরান -২ নামে অভিহিত করা হয়। সরকার ক্ষমতায় আসার পর মাত্র এক মাসের মধ্যে পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়।

যদিও রাশিয়া ও ফ্রান্সের মত কিছু দেশ, প্রতিরক্ষামূলক পারমাণবিক শক্তির ওপর ভারতের অধিকার সমর্থন করে, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, কানাডা, জাপান, ব্রিটেন এবং ইউরোপীয় ইউনিয়নের সহযোদ্ধারা ভারতকে তথ্য, সম্পদ ও প্রযুক্তি সংক্রান্ত নিষেধাজ্ঞা আরোপ করে। তীব্র আন্তর্জাতিক সমালোচনা ও বৈদেশিক বিনিয়োগ ও বাণিজ্য হ্রাস সত্ত্বেও পারমাণবিক পরীক্ষাগুলি স্থানীয়ভাবে জনপ্রিয় ছিল।

তাঁর প্রশাসনের সময়, অনেক গার্হস্থ্য অর্থনৈতিক এবং অবকাঠামো সংস্কারের প্রবর্তন করেছিলেন, বেসরকারী খাত ও বিদেশী বিনিয়োগকে উৎসাহিত করা, সরকারি বর্জ্য হ্রাস করা, গবেষণা ও উন্নয়ন উৎসাহিত করা হয়। এবং তাঁর সময়কালে ভারত বর্ষের মহাকাশ বিজ্ঞানের গবেষণায় প্রভূত উন্নতি ঘটে।

জাতীয় রাজধানী উন্নয়ন প্রকল্প এবং প্রধানমন্ত্রীর গ্রাম সড়ক প্রকল্পে বাজপায়ীের অন্যতম অবদান। আমরা দেশবাসীরা তার প্রয়ানে শোকাহত, তাঁর আত্মার শান্তি কামনা করি।



Comments are closed.