10 Best Bengali Dialogue- বাংলা সিনেমার সেরা ১০ টি ডায়লগ

 বাংলা সিনেমা (bangla cinema) ওয়ার্ল্ড সিনেমার একটি গুরুত্বপূর্ণ অংশ, বাংলা সিনেমার ও পরিচালকদের নতুন ও ফ্রেশ ভাবনা ও তা সুনিপুন ভাবে  তোলা বাংলা সিনেমাকে বিশ্বের দরবারে অত্যন্ত জনপ্রিয় করে তুলেছে। সামাজিক ঘটনা, নতুন ভাবনা, রোজকার  সম্পর্ক তার নানান অলি  গলি, সাধারণ মানুষের রোজকার বেঁচে থাকার লড়াই, মধ্যবিত্ত পরিবারে বড় হয়ে ওঠা মানুষ গুলোর জীবনের স্বপ্ন গুলোকে সত্য করে তোলার লড়াই, নতুন কিছু করার,  রেখে যাওয়ার ইচ্ছে, নতুন কিছু  এই সমস্ত জিনিস নানা ভাবে নানান রঙে উঠে এসেছে বাংলা চলচিত্রের পর্দায় বার বার।  সাধারনের মধ্যে লুকিয়ে থাকা সৌন্দর্য্য দেখিয়েছেন বাংলার পরিচালক ও কলাকুশলীরা যা সারা পৃথিবীর মানুষকে মোহিত করেছে. সত্যজিৎ, ঋত্বিক, মৃনাল এই তিন মহীরুহ তো আছেনই তার সাথে সাথে তপন সিনহা, তরুণ মজুমদার এর মত বহু পরিচালক  অসাধারন সমস্ত ছবি উপহার দিয়েছেন। এছাড়া বর্তমানে অপর্ণা সেন, কৌশিক গাঙ্গুলী, সৃজিত মুখার্জী,আদিত্য বিক্রম সেনগুপ্ত, শিবপ্রসাদ মুখোপাধ্যায়- নন্দিতা রায়  ইত্যাদি রা আসা যাওয়ার মাঝে, কেয়ার অফ স্যার, বিসর্জন, চতুষ্কোণের মত অসাধারন সমস্ত সিনেমা আমাদের উপহার দিয়েছেন। এই সমস্ত সিনেমা কখনো আমাদের পারিবারিক স্বত্বাকে আমাদের সামনে এনে দাঁড় করিয়েছে কখনো আমাদের বিবেক বুদ্ধির সামনে এনে দাঁড় করিয়েছেন, ও তাকিয়েছে কড়া চোখে। এবং এমন কিছু সংলাপ এখানে আছে যা আমাদের সারা জীবনের মত মনে থেকে গেছে, এবং সেই সিনেমা টিকে এখনো আমরা মনে করি ওই সংলাপের মধ্যে দিয়েই।

10 Best Bengali Dialogue- বাংলা সিনেমার সেরা ১০ টি ডায়লগ

কিতনে আদমি থে? বা পেয়ার দোস্তি হে!, কিংবা ক ক ক কিরণ এই তিনটে শব্দ বন্ধ প্রিয় আমাদের কি মনে হল? তিনটে সিনেমার কথা- তিনটে কালজয়ী বা কাল্ট ক্লাসিস্ক – শোলে, কুছ কুছ হোতা হে, ও ডর এই তিনটি সিনেমায় তার এই কয়েকটি ডায়লগের জন্য অত্যন্ত বিখ্যাত। এমনই কিছু বাংলা সিনেমার ডায়লগ বা সংলাপ আছে যা আমাদের কাছে অত্যন্ত জনপ্রিয়।যা আমাদের জীবনের মাইলস্টোন হয়ে আছে। তেমনই কিছু ডায়লগ এখানে দেওয়া হল।

1. নায়ক – সত্যজিৎ রায় 

“আই উইল গো টু দা টপ,  দা  টপ,   দা টপ ! ” – নায়ক

2. হীরক রাজার দেশে – সত্যজিৎ রায় 

“এরা যত বেশি পড়ে
তত বেশি জানে
তত কম মানে ”
– হীরক রাজার দেশে

3. কাঞ্চন জঙ্গা – সত্যজিৎ রায় 

“এই romantic surroundings এ তোমার হয়তো মনে হচ্ছে love is the most important thing in the world,
কিন্তু কলকাতায় ফিরে গিয়ে তোমার যদি কখনো মনে হয়  প্রেমের চেয়ে security বড় কিংবা security-র থেকে প্রেম grow
করতে পারে, তাহলে আমায় জানিও কেমন।”
-কাঞ্চন জঙ্গা

4. সোনার কেল্লা – সত্যজিৎ রায় 

“এরা কি গৃহ পালিত না বন্য
-গৃহপালিত।
এরা কি খায় ?
-সাধারণত এখানে যেসব ঝোপ ঝড় গাছপালা দেখা যায়।
– ইহারা  কি কাঁটা ঝোপ খায়?
-হ্যাঁ
-ইহারা কি কাঁটা বেছে খায়?”
– সোনার কেল্লা

5. জয় বাবা ফেলুনাথ – সত্যজিৎ রায় 

“আমারই তো মাইন্ড,
চেঞ্জ করতে বাধা কোথায় ?”
– জয় বাবা ফেলুনাথ

6. মেঘে ঢাকা তারা – ঋত্বিক ঘটক 

“দাদা আমি বাঁচতে চাই!”
– মেঘে ঢাকা তারা

7. ভুতের ভবিষ্যৎ – অনীক দত্ত 

“ভূতেদের পুনর্বাসনের কথা কেউ ভাবেনা
কারন তারা Consumer নয়,
কারন ভূতেদের ওপর টি আর পি নির্ভর করেনা।”
– ভূতের ভবিষ্যৎ

8. বাইশে শ্রাবণ – সৃজিত মুখার্জী 

“বিরিয়ানি টা হল লাক্সারী আর ডাল  ভাত টা হল নেসেসিটি। দুটোর মধ্যে তফাৎ তা বুঝতে শেখো।” – বাইশে শ্রাবণ

9 দহন – ঋতুপর্ণ ঘোষ 

“Rape আর  Molestation এর মধ্যে তফাৎ টা ঠিক কী ?” – দহন

10. উনিশে এপ্রিল – ঋতুপর্ণ ঘোষ 

“-  তুমি সোমনাথ বাবুকে বিয়ে করলেনা কেন মা ?
-কেন ?
– সারা জীবন একা একা…
– সোমনাথ আমার বন্ধু মিঠু ,
সারাজীবন সুখে দুঃখে, বিপদে আপদে আমার পাশে থেকেছে।
বিয়ে করে কমপ্লিকেশন বাড়িয়ে লাভ কী ?”
– উনিশে এপ্রিল

শেষ কথা 

বাংলা সিনেমা শুধু আমাদের বাঙালিদের কাছেই অত্যন্ত প্রিয় না, সারা পৃথিবীতে এর অভিনবত্বর জন্য বেশ বিখ্যাত। সত্যজিৎ রায় ভারত বর্ষের একমাত্র পরিচালক যিনি অস্কার পেয়েছেন। এছাড়া মৃনাল সেন ও ঋত্বিক ঘটকের মত পরিচালকদের ছবি গুলো সারা পৃথিবীর মানুষের কাছে এক একটি উদাহরণ। এখন তৈরী হওয়া সিনেমা গুলির বিষয়বস্তু ও মনন দুই ই অত্যন্ত সুন্দর ও প্রাসঙ্গিক।আমাদের রোজকার জীবনে প্রেম হোক বা দুঃখ সবকিছুর জন্যেই বাংলা সিনেমায় কিছু না কিছু ডায়লগ আছে যাকে আমরা বলতে পারি bangla love dialog, বা bangla romantic dialogue. আমাদের রোজকার জীবনে ঘটে যাওয়া সাধারণ ঘটনা গুলিও যে কত অসাধারন হতে পারে যদি সঠিক ভাবে ও সঠিক সময়ে লক্ষ্য করা হয় ও ভাবা হয় তা নিয়ে। তাই সেরকম কিছু অসাধারন সিনেমার অসাধারন কিছু ডায়লগ এখানে দিলাম। ভালো লাগলে শেয়ার করতে ভুলবেন না।


Comments are closed.