Bengali Romantic Lines – বাংলা রোম্যান্টিক ডায়লগ

প্রেম মানুষকে বাঁচিয়ে রাখে, একথা শহরের অলিগলিতে কান পাতলেই জানা যায়। আমাদের ভেতরে যে আগুনটা আছে সেই ভালোবাসার আগুনে আমরা নিজে পুড়ি বা পোড়াই কাছের লোকটাকে। এতে ফোসকা পড়ে না বরঞ্চ এই আগুনে নিখাত হয় জীবন। এই শহরের তথাকথিত জড় বস্তু গুলো ভীষন জীবন্ত কারণ,  তারা জানে রোমান্টিসিসম জন্মভিটের নাম কলকাতা। “যে জন প্রেমের ভাব জানে না তার সাথে নেই লেনা দেনা” কথা গুলো এই বঙ্গদেশে জন্মায় । আমাদের সব কাজ যতটা না মগজচালিত, তার চেয়ে বেশি মন চালিত।কারন আমরা রোম্যান্টিক। বাসের ভিড়ে হঠাৎ আঙুল ছুঁলে, কিংবা ভাগাভাগি করা চিকেন রোল আমাদের প্রেমে পড়ার ভঙ্গি  আচমকাই। আমাদের শীতকালের ময়দান, গরম কালের ঠান্ডা সরবত, কিংবা চোখের তলায় সাজানো গোছানো কাজল সবাই জানে আমাদের প্রেমিক মনের কথা। আমাদের সিনেমা , গান , নাটক, কবিতা সবেতে এই প্রেম ঝড়ে ভীষন বেগে। আর আমাদের শহরে মধুও প্রেমে পড়ে, মাইকেলও। তাদের সবার গপ্পো থাকে আমাদের ছবিতে , শুক্রবারের নতুন পোস্টারে। কলারতোলা প্নে বয় , থেকে শুরু করে পাঞ্জাবি পড়া যুবক সবার জন্য ছবির কথা গুলো। সেই কথা গুলো উঠে আসে প্রেম প্রকাশে। সবটা বুঝিয়ে বলার জন্য আমাদের হাত ধরতেই হয় কথা গুলোর । কারণ প্রেমিকমন বড্ড গোবেচারা, সে বোঝাতে পারেনা , কারণ সে অজান্তেই ভেবে ফেলে আমি তো কবি নই। তাই এই হাত ধরা। আমাদের সেলুলয়েড নিরাশ করে না আমদের, বিরাট কোহলিয় কায়দাতে বাঁচিয়ে দেয় আমাদের। আমাদের প্রপোস থেকে শুরু করে ঝাল টক ঝগড়া, কিংবা কোন ঝাপ্সা কাঁচের মুহুর্ত আমাদের ভ্যাবলানির হাত থেকে বাঁচিয়ে দেয় ।কাঊকে মনে মনে ভাললাগে বলতে না পারার জ্বালাটা যে কি কঠিন তা যে জানে  সে জানে কষ্ট নামের অন্য সংজ্ঞা। তাদের জন্যও সেলুলয়েডের কিছু বিখ্যাত লাইন থাকে, কারন সেলুলয়েড সব্বার, আবার বড্ড একান্ত আপন।এখানেই লুকিয়ে আছে এর আসল ম্যাজিক।

Bengali Romantic Lines – বাংলা রোম্যান্টিক ডায়লগ
 

আপনি পড়তে পড়তে ভাবছেন , আমারও তো এমন হয়। ভাবছেন আমি আর কি কেতা নিয়ে বলবো? সে সামনে এলেই যে আমি শব্দ হারাই। কুছ পরোয়া নেহি, আপনার বন্ধু আছে যে। আপনাকে দিলাম  এমন কিছু লাইন, প্র্যাক্টিস করুন আয়নার সামনে দাঁড়িয়ে , বা উড়িয়ে দিতে পারেন ভারচুয়াল কায়দাতে। ঝগড়া চললে সে মেঘ কাটবেই। মনের মধ্যে যদি গুরগুর করে উগড়ে দিন। ঝড়িয়ে  দিন বৃষ্টি হয়ে। আপনার প্রেম বাড়বেই বাড়বে।

1. আকাশ যখন কথা বলে। 

“-আজ সকাল থেকে আকাশে মেঘ আর রোদের খেলা চলছে,
একটু পরে আকাশ মেঘে ছেয়ে যাবে।
জেপি র ইম্পরট্যান্ট লেকচার বাড়ির সব লোকেরা আজ  না হয়
মেঘের তলায় চাপাই পড়ে থাক না।
কি যাবেন?
-চলুন।”
– মেমসাহেব
প্রিয় মানুষকে উপহার দিন শহরের মায়া। আবদার করুন  একসাথে বৃষ্টি ভেজার। তার সামনে উজাড় করুন সবটা,
সে আসবেই। সাথে থাকবে সবটায়। লেপ্টে থাকবে আপনার পকেটের খুচরোতে , আপনার প্রিয় রিংটোনে।

2. কথা আছে, দেখা হবে ; হেঁটে যাবো ছায়াপথ। 

“ যদি তোমার আমার দেখা না হতো?
-কি আবার হতো? রাস্তায় ল্যাম্পপোস্ট সেজে লুকিয়ে থাকতাম।
 কিংবা রাস্তায় ট্রামলাইন সেজে শুয়ে থাকতে?”
– অভিশপ্ত নাইটি

আমরা যারা প্রেমকে চিনি, তারা প্রেমিকার চোখে সাত সমুদ্দুর আর তের নদী দেখতে পাই। তারা জানি প্রেমিকার রুমাল গন্ধ লুকিয়ে আছে আমাদের শহুরে জীবনযাত্রায়। আমরা খুঁজে পাই তাকে , কখনো দিনের ক্লান্তিতে কখনো রাতের নিস্তব্ধতায়। আমরা সুযোগ বুঝে অত্যাধিক রোম্যান্টিক।

3. ভালোবাসা কারে কয়। 

“ভালোবাসা ভালোবাসে শুধুই তাকে, ভালোবেসে ভালোবাসায় বেঁধে যে রাখে”
– দুই পৃথিবী
আমাদের মধ্যে রাজু থেকে র‍্যাম্বো সবাই প্রেম করে কারো প্রেম  অতি নান্দনিক , কারো আবার কলারতোলা চাবুক প্রেম।

তাই লোক বদলায় তাকে প্রকাশের ভাষাও। তবু দিনের শেষে প্রেমে থাকে সব্বাই কারণ প্রেম সার্বজনীন এবং বেপড়োয়া।

4. যখন প্রেম আর সংসার দুই ই সমার্থক হয়ে ওঠে। 

“ তুমি আমাকে ভালোবাসো না  আরতি, তুমি সংসার কে ভালওবাসো
– আমার কাছে তুমি আর সংসার আলাদা না”।
– বেলাশেষে
প্রেমের পর যখন সংসারে বিষয়টা উন্নিত হয় আমাদের ভাবনা আসে প্রেম টা আগের মতো নেই। আমরা বুঝি না সব জিনিসের একটা ট্রান্সফর্মেশন হয়। প্রেম টা আমাদের থেকে আমাদের চাদর বালিশ বিছানাতে চলে যায়। আর আমরা তাকে খুঁজে বেড়াই  আমাদের হাতের তালুতে ।

5. কিছু কিছু মানুষের অস্তিত্বের জন্য পৃথিবী ও ধন্য হয়। 

“-তুমি এখান থেকে চলে গেলে আমাদের খুব ক্ষতি হবে জানো,
– একথা  এর আগে এমন করে বলোনি কেন?তাহলে যেতাম না।
– আগে আমিও বুঝতে পারিনি আমি তোমাকে কতটা ভালোবাসি
-হার মানা হার
আমরা ভুল করি আমরা মানুষ। আঘাত দি প্রিয়জনদের, তাদের হারাই।তবু ভালোবাসা ফিরে ফিরে আসে।
আমাদের বাধ্য করে ভালোবাসতে ,প্রেমে থাকতে ।জীবনটাকে বাঁচতে।


6. অভিমান ছাড়া প্রেম হয়না। 

“আমি জানতাম তুমি আসবে
    তাই অপেক্ষা করছিলাম

আজ কিন্তু ঝগড়া করতে পারবে না”

-বসন্ত বিলাপ

আমরা অপেক্ষাতে বাঁচি, আমাদের ভালোবাসা পলাশে ফোটে।
আর যে সময় মন গুলো মিলে যায়, গল্প গুলো প্রেমের হয়।

7. ভালোবাসায় মানুষ বেড়ে ওঠে। 


“আমি দেব তোমাকে অবকাশ
তোমার প্রতিভাকে নেভাতে তো আমি আসিনি,
আমি এসেছি তাকে জ্বালিয়ে তোলার জন্য”
– ইন্দ্রানী

আমাদের ভালবাসার মানুষের স্বপ্ন অচিরেই আমাদের স্বপ্ন হয়ে যায়। তাতে ভাগীদার আমরাও। তাকে বিকাশ দেওয়ার দায়িত্ব আমাদেরই।

8. চাওয়া আর পাওয়ার মধ্যে এক বিরাট দূরত্ব। 

“তবু একান্ত ভাবে কাউকে  তো চেয়েছেন,
    হ্যাঁ কিন্তু লাভ কিসে যখন ফেলেই যেতে হবে”।
– চাওয়া পাওয়া
আমরা আটকে যাই বাঁধাতে আমরা যা চাই সব সময় পাই না। কিন্তু চাওয়াটাই আসল, প্রেম তো কোনো রাজার রাজত্ব নয়, যে তাকে দখল করতে হবে। আনতে হবে  রাখতে হবে তাকে বুক পকেটে, জামার বোতামে।


9. প্রেমিকার থেকে বৌ এর প্রতি প্রেম তা বেশি আসে পুরুষের। 

“এবার মোলে  সুতো হবো

    তাঁতির ঘরে জন্ম লবও

পাছাপেড়ে শাড়ি হয়ে দুলবো তোমার কোমরে

তোমরা যে যা বল আমারে
– মৌচাক  

যদিও এটা গানের লাইন, তবু এ গানের মধ্যে রয়েছে প্রেমিক আবেদন। এই স্বপ্ন কোন প্রেমিক না দেখে যে প্রেমিকার গাঁয়ের আঁচল হয়ে তার গন্ধে মেখে থাকতে।

10. কথা না বলা একটা বড় অসুবিধে। 

“ তোমরা ছেলেরা আর কিছু বোঝোনা না?
   -বুঝি কিন্তু বোঝাতে পারিনা
    তাই সারা জীবন বোঝা  বয়ে নিয়ে বেড়াই।”
– অভিশপ্ত নাইটি
আমাদের অনেক সময় কথা হারিয়ে যায় প্রিয় মানুষ টার সামনে। আমরা বোঝা বয়ে নিয়ে বেড়াই। প্রেমের মন আমরা বুঝি চোখের কথায় কিন্তু চোখের বর্ণমালা অনুভুতির। তা চোখেই বোঝা যায়। সেই শব্দ গুলো বোঝাতে না পারার ব্যাথা অসহনীয়।

শেষ কথা 

প্রেম মানে সরষে ক্ষেত না, প্রেমের যে ভাব, তার যে আবেগ তার যে স্পন্দন সবাই বোঝে না বোঝে না তার আগুন কে। না বুঝেই প্রেম আসে আমাদের ভাসিয়ে নিয়ে যায়। আমরা থাকি রাজার মতো। আমাদের বুকের পায়রা ওড়ার শব্দে গমগম করে আমাদের চার পাশ আমরা ভালোবাসি  আগের থেকে অনেক বেশি। কিন্তু সমস্যা আসলে ছবি তার লাইন আছে কেতায় না মন থেকে বলুন সে বুঝবে। নিজের প্রাণকে পাঠিয়ে দিন প্রেমের ঠিকানায়। ভালোবাসুন।ভালো রাখুন।
প্রেমে পড়ুন থুরি প্রেমে উঠুন।


Comments are closed.